লিখছি বঙ্গলিপি
আমার সমস্ত হৃদয় ঘৃণায় বেদনায়।

পাখিগুলো নীড়ে ফিরে গেছে
স্বাধীন বাঙ্গালীরা শান্তির ঘুম ঘুমায়,
তারকারা জোনাকির মত নিভূ নিভূ জ্বলছে
চন্দ্রটাও যেন রবির সাথে অস্ত যায়
লিখছি বঙ্গলিপি
আমার সমস্ত হৃদয় ঘৃণায় বেদনায়।

হুতুম পেঁচাগুলোও সেদিন রাতকানা
শকুনের আনা গোনায়
লিখছি বঙ্গলিপি
আমার সমস্ত হৃদয় ঘৃণায় বেদনায়।

সেদিন পঁচাত্তরের পনের অগাস্ট অন্ধকার রাত
কুকুরগুলো যেন মরে গেছে, শিয়াল নির্বাক
পোষা বিড়ালের দল ইঁদুরের গর্তে হাত পা গুটি
জানোয়ারদের ছোটাছুটি,
শিশু-কিশোর-রমণীদের চেঁচামেচি
বিনীত আর্তনাত বাঁচার আকুতি
শোন বাতাসে আজও মিশে আছে শোন
কান পেতে শোন নিজন্ম শিশুর
কাঁন্নাও শোনা যায়
লিখছি বঙ্গলিপি
আমার সমস্ত হৃদয় ঘৃণায় বেদনায়।

সেদিন স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা
অভিমান নিয়ে চলে যায়,
বুঝলিনা শকুনের দল
জীবন শুধু নয় ক্ষমতায়
বেঁচে থাকায়।

আজ দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে
কেন কর হায়! হায়!
কাঁদো বাঙ্গালী কাঁদো
নিঃশব্দে বঙ্গবন্ধু ঘুমায়।