এখন বেশ আছি আঁতুড় ঘর, ক্ষুধা আর শীত
শূন্য হাত সকরুণ আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকে
বাজখাই গলা বেসুরো হাঁকে
এ জীবনের নিবেদন; এখন মানুষগুলো
যেনো কেমন কেমন, কেউ তাকিয়েও দেখে না!

ওই পাড়ায় গিয়েছিলাম জ্ঞান দর্শন; সেখানেও
ঈশ্বর জেগে জেগে ঘুমিয়ে আছে; কামলা আর
আমলা ওরাই এখন বেশ আছে, আমিও কম না
বয়ে বেড়াই জীবনের মামলা, সংজ্ঞাহীন দিন-রাত
তবুও চলে যায়, কখন জোয়ার, কখন ভাটা
কিছুই বুঝি না!

অনুতাপ আর পরিতাপ ওরাই এখন এ জীবনের
পদাবলি,ওদেরই এখন গিলে গিলে খাই বিষকাঁঠালি;
বিলুপ্ত বোধ সেও মাঝে মাঝে বিপ্লবী হতে
চায়, তবে হালে পানি পায় না; গ্রীলকাটা জানলার
মতো আমিও এখন ধূসর পাণ্ডুলিপি!!