ফুটো বেলুনের মত- মুহূর্তে চুপসিয়ে যাই
আকাশে তীরবিদ্ধ পাখির মত- ছটফটাই,
সদ্য ডাঙ্গায় তোলা মাছের অনুচ্চকন্ঠ কান্না
ফাঁসির মঞ্চে নির্দোষীর বাঁচার বৃথা তামান্না,
সূর্যাকাশে চাঁদের যেমন নিস্প্রদীপ চেহারা
ঘন মেঘাকাশে পূর্ণিমাও তেমন দিশেহারা।

যখন ভাবি আমার শিশু আর কৈশোর বেলা
বাবা-মার সাথে প্রেম বিনিময়ের সেই খেলা,
কে যেন ছিঁড়ে দেয় তখন- ধরণীর বন্ধন
লাগে বিতৃষ্ণ প্রেয়সীর নিবেদিত আলিঙ্গন,
একাকি যখন ভাবি বাবা-মার সুরেলা ডাক
ভাল্লাগেনা সংসারের চাকচিক্য হাঁক ডাক।

চিন্তনে-মননে-শরীরে প্রতিটি কোষ গ্রন্থনে
রেখেছিলো জরায়ুর- সযত্ন ঘরের মন্থনে,
কোন্ কৃত্রিম জড়জগতে রেখে গেছ তোমরা
যেখানে ঘরে-বাইরে নির্লজ্জ বিষাক্ত ভোমড়া,
বাবা, নিঃস্বার্থ হাতদুটি আবার দাও বাড়িয়ে
মা, তোমার অপেক্ষায় এখনও থাকি দাঁড়িয়ে।