অকালে মৃত্যু মহাকালের সেই চিহূ ধরে,
আমার মহাপুরুষ বংশীয় নায়ের মহারথী ;
বীজ বপনে, কখন এসেছিল ?
আমার জন্মের এই জনপদে সবুজ কৃষানীর মায়া জ্বালে
বেড়ে উঠা মানব মহীরুহু !
গুহা ভুষন ছেড়ে, সব্যসাচী সভ্য স্বাধীন,
বংশীয় ঘানি টেনে টেনে,
প্রাকৃত যুদ্ধে লড়ে সোনা ফসলের মহাউৎসবে
গোলাভরা ধান, পুকুর ভরা মাছ, ধন ধান্যে সুখে !
বগরীরা যায়রে লুটে ;
নীল চাষের কোষাঘাতে আমার বীর্য পুরুষেরা বজ্রমুষ্টির
প্রতিবাদে নিঃশেষ করেছে জীবন ।
শোষনের যাতা কলে কালের বহমান যাত্রায়,
বার বার সমুখ যুদ্ধে পরাজয় মেনেও"রক্ত ঢেলে স্বাধীনতার নেশায়"
সংগ্রামে মেতেছে এই জন পদের আমার গর্বের কালের পুরোধা'রা ।

আর আমি শুনেছিলাম, হানাদার বাহিনীর বুলেটের বিদীর্ণ ধ্বংসের আওয়াজ
চারিদিকে লেলিহান আগুনের শিখা আর মানুষের বাঁচার আত্মচিৎকার
মায়ের বুকে মাথা গুজে গুমোট এই সময়ের প্রহর গুনেছি ।
হটাত একদিন পশ্চিম পাড়ায় জয়ের উল্লাস ভেসে আসে,
জয় বাংলা ধ্বনীতে আমার গায়ের বাতাস, মেঘ উঠলো উড়ে
মায়ের মুখে এক চিলতে হাসি টেনে---দেশ স্বাধীন হইছে বাবা !