লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১৭ ফেব্রুয়ারী ১৯৭৯
গল্প/কবিতা: ২০টি

সমন্বিত স্কোর

১.৯৮

বিচারক স্কোরঃ ০ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৯৮ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftশীত (জানুয়ারী ২০১২)

গ্রাম্য শীতের গল্প
শীত

সংখ্যা

মোট ভোট ৭৯ প্রাপ্ত পয়েন্ট ১.৯৮

শেখ একেএম জাকারিয়া

comment ৪২  favorite ৪  import_contacts ২,৪৬৫
কৃষক মাঠে লাঙ্গল চষে শীত সকালে উঠে,
জেলেরা যায় মাছ ধরিতে দূর হাওরে ছুটে ।


গাঁয়ের বধু রান্না ঘরে নিত্য করেন খেলা,
ঢেঁকিতে ধান ভানে কন্যার হারিয়ে যায় বেলা।

গাঁয়ের মেয়ে জলের ঘাটে যায়গো নিয়ে গরা,
শীতের রাতে গ্রামীন গল্প রঙ্গরসে ভরা।

দাঁড় টানিয়া মাঝি¬_মাল্লা চলে উজান বঙ্গে,
শীত সকালে গরম হাওয়া লাগে তাদের অঙ্গে।

জোয়ান_বুড়ো রৌদ্র মাখে গায়ে লাগে জস,
মনটা নাচে খেয়ে সবার খেজুর গাছের রস।

শীতের দিনে গাঁয়ের ছেলে শিশির মাখা ভোরে,
সবুজ_শ্যামল ছায়া দেখে মনটা তাহার উড়ে।

গাঁয়ের মেয়ে সরল মনে হাজার স্বপ্ন দেখে,
গ্রাম্য জীবন ফুটিয়ে তুলে নকশী কাঁথা এঁকে।

নতুন শিশুর জন্ম হলে কষ্ট শীতের চড়ে,
আইলা বসায় গ্রামের মানুষ মাতৃ আতুর ঘরে।

শীতের রাতে শীতের পিঠা মনের মাঝে আঁকা,
গরম ক্ষীরে পরান ভরে যায় না দূরে রাখা।

শীতের সময় শূন্য বৃক্ষ শুকনো ঝরা পাতা,
বুড়ো_বুড়ির গায়ে কাঁপন দেহে নকশী কাঁথা।

দাদু_নানু গল্প বলেন কাঁথার ভেতর ঢুকে,
কেউ না দেখে চন্দ্র_তারা নীল আকাশের বুকে।

দুঃখ করে চন্দ্র_তারা গগন বনে থেকে,
ঘুমের দেশে সবাই হারায় চলে এঁকে বেঁকে।

সন্ধ্যা হলে আগুন জ্বলে গাঁয়ের বিশাল মাঠে
শীত পালিয়ে যাচ্ছে দূরে নগর বন্দর হাটে।

শিশু কিশোর যাচ্ছে নেচে মুখে ছাতু মেখে,
যতই ভাবি হচ্ছি অবাক এসব ছবি দেখে।

শীতের রাতে কেমন লাগে বাঁশের পাতার ধোয়া,
আমরা যারা উপর তলার পাই কি শীতের ছোঁয়া?

সাহেব সেজে শহুরে লোক অফিসে যান ছুটে,
কোনটা আসল কোনটা নকল হৃদয় মাঝে কুটে।

গল্প লিখি, কাব্য লিখি, লিখি প্রেমের ছড়া,
জীবন বাজি রেখে যারা গড়ছে সোনার ধরা।

ভাবনা গুলো যাদের তরে দেই কি তাদের মূল্য,
নিত্য যোগায় আহার যারা নেই কোন যে তুল্য।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement