বাবার মুখটা আমার সৃতিপটে
এতটাই স্পষ্ট এতটাই আপন,
মনে হয় রং তুলির ছোঁয়ায়
অনায়াসে আঁকতে পারি ।
কিন্তু কখনোই পারি না,
কি করে আঁকি ঝাপসা চোখে যে ক্যানভাসটাই দেখি না।
ছোট থেকেই খুব বাপ নেওটা ছিলাম
তার হাত ধরে হাঁটতে শেখা।
বাবার হাতের বুড়ো আঙুল ছিল প্রিয়।
সেই আঙুলে অধিকার ছিল শুধুই আমার।
একটু বড় হয়ে যখন বাবার সাথে হাঁটতাম
তখন আমি বাবার পদচিহ্ন ধরে যেতাম।
নিশ্চিন্তে পা ফেলে নিতাম বাবার পিছু।
বাবার পিঠ আমার কাছে আকাশ মনে হত
আর পিঠজুরে তিলগুলো তারা।
কতদিন দেখিনা সেই প্রিয় মুখ খানি
দেখিনা সেই ঘামে ভেজা পাঞ্জাবী।
কেউ আর মাথায় হাত রেখে বলেনা
পাগলী মা আমি আছি ভয় কি।
হাজার মানুষের ভিড়ে খুঁজে বেড়াই
কোথাও পাই না আমার প্রিয় বাবাকে।
আজ বাবা নেই আছে তার সৃতির ডালি।
কোন কিছুর অভাব নেই আমার চারপাশে
মনের মাঝে শুধুই বাবা তোমার অভাব।