"হারানো শৈশব" কবিতাটিতে ছেলেবেলায় হারিয়ে যাওয়া স্মৃতিগুলো তুলে ধরা হয়েছে । মানুষ শৈশব কৈশোরের সুন্দর সময়গুলো পার করে যখন জীবন ও জীবিকা নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে যায় । তখন শত ব্যস্ততার মাঝেও বারে বারে হারানো শৈশব ফিরে আসে । মন চায় আবারো সেই ছোট্টো বেলায় ফিরে যেতে । কিন্তু তা আর সম্ভব হয়ে ওঠে না । মানুষ জীবনের সুখ শান্তির জন্য যতই কর্ম-ব্যস্ততায় দিন কাটুক না কেন, হারানো শৈশবের মতো সুখ শান্তি পাবে না । এই কবিতাটিতে শৈশব-কৈশোর অর্থাত্ ছেলেবেলা নিয়ে বর্ণনা করা হয়েছে । সুতরাং কবিতাটি বিষয়ের সাথে অবশ্যই সামঞ্জস্যপূর্ণ ।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৬ ফেব্রুয়ারী ১৯৯৬
গল্প/কবিতা: ৩টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - কৈশোর (সেপ্টেম্বর ২০১৯)

হারানো শৈশব
কৈশোর

সংখ্যা

তোজাম্মেল হক খোকন

comment ২  favorite ০  import_contacts ৪৭
কেটেছে কত দিন, কেটেছে কত মাস,
হারানো সেই শৈশব আজ ইতিহাস ।
জীবন কতো সুন্দর কতো মধুময়,
শৈশব স্মৃতি মনে পড়লে বুঝা যায়।
সারা পাড়া গাঁয়ের সব সাথীরা মিলে,
কাটতাম সময় কতো যে খেলা খেলে ।
সারাটি বিকাল ধরে করে খেলাধুলা,
ফিরতাম নীড়ে মোরা রোজ সন্ধ্যা বেলা।
মনে পড়ে, শৈশবের লাটিম গুরানো,
নাটাই সূতা দিয়ে সেই ঘুড়ি ওড়ানো।
শৈশব কালে কত গাছে-গাছে ঝুলেছি,
পানি ভেঙে কত শাপলা-পদ্ম তুলেছি।
গেঁথেছি কত ফুল মালা কুড়িয়ে ফুল,
ঢিল ছুঁড়ে পেরে খেয়েছি যে কত কুল।
পেরেছি যে কত মজার মজার ফল,
কত আম-জাম-লিচু,বরই-কাঁঠাল!
কত যে কেটেছি সাঁতার নদীর জলে,
বহমান সেই ঢেউয়ের তালে-তালে।
শৈশব কালে কাটানো সেই দিনগুলো!
আহা! কী যে মজার আর দুর্দান্ত ছিলো।

মিথ্যা সুখ আর অর্থ-বিত্তের আশায়,
মেতে আছি আজ আমি কর্ম-ব্যস্ততায়।
হয়নাতো দেখা আর সে মুক্ত আকাশ
হয়নাতো নেয়া আর সে শুদ্ধ বাতাস।
শৈশবের মতো সুখ আজ আর নাই ।
মন চাই ফিরে যাই শৈশব বেলায়।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement