শেষের রাতে, বাদল প্রাতে
বকুল গাছের তলে
একলা বধূ ফুল তুলছে
গাথবে মালা বলে ।
ফুল কুড়িয়ে সাজাবে বধূ
পূজার নৈবেদ্য
মন্দিরেতে কাসার ঘন্টায়
বাজছে প্রার্থনার বাদ্য ।
পূজার অর্ঘ্য সাজিয়ে নিয়ে
সজল নয়নে
প্রতীক্ষাতে বসে আছে বধূ
একাকি বাতায়নে ।
মনে পড়ে , এমনি বর্ষায়
কোনো এক সাঝেঁ
আনত নয়নে বসেছিল বধূ
তার পাশে ।
হৃদয় জুড়ে কত তোলপাড়
মুখে নেই কোনো কথা
আত্ননিবেদনের মহেন্দ্রক্ষণে
মধুর নীরাবতা ।
কেটেছে রাত্রি , নিশ্চিদ্র যামিনী
ভালোবেসে দুজনে
বর্ষায় ফুটেছে কেতকী , কদম
দূরের কুঞ্জবনে ।
কেটেছে প্রহর , ফুরিয়েছে দিন
এসেছে ক্লান্তি , অবসাদ
চলে গেছে সে , খুজেঁ পেতে কোথাও
নতুন প্রেমের সাধ ।
দিন ফুরিয়ে সন্ধ্যা নামে
প্রদীপ জ্বলে ঘরে
ব্যর্থ প্রতীক্ষায় বসে আছে বধূ
কেউ এলো না ফিরে ।
বিগত দিবস , বিগত যৌবন
সে আসে নি ফিরে
ক্লান্ত বধূর অশ্রুগুলো
বৃষ্টি হয়ে ঝরে ।