সন্তানের কারণেই বাবা মা বাবা মা হয়ে উঠা । বাবারা ছেলেমেয়েদের স্নেহের সঙ্গে প্রতিপালন করেন । অতিরিক্ত শাসন যেমন ভাল নয় সন্তানের জন্য তেমনি অতিরিক্ত অাদরও সবসময় মঙ্গলজনক হয় না সন্তান লালনপালনের ক্ষেত্রে। বাবা মা এর খেয়াল রাখতে হবে যে সন্তান কি করছে কাদের সঙ্গে মিশছে ।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১৪ মে ১৯৬৭
গল্প/কবিতা: ১৪টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftপিতৃত্ব (জুন ২০১৮)

বিষের নেশা
পিতৃত্ব

সংখ্যা

এলিজা রহমান

comment ০  favorite ০  import_contacts ৭৮
যমুনা নদীর তীরে এই ঘাট বালাসী বাংলাদেশের একমাত্র রেল ফেরি ঘাট । অামি অাছি এই বালাসী ঘাট থেকে একটু দূরে একটা পলাশ গাছের নীচে শুয়ে এখন । সকালের ঠান্ডা বাতাস অার নদীর প্রাকৃতিক দৃশ্য অামাকে ক্ষনিকের জন্য বিহ্বল করে তুলেছে যদি ও অামার এখন প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করার মত মানসিক অবস্হা না । অামরা বিনি পয়সায় অাল্লাহর অনেক নিয়ামত উপভোগ করি । মানুষের জীবন অনিশ্চিত , কখন তার জীবন কি হবে তা সে জানে‌ না । সমুদ্রের যেমন জোয়ার ভাটা অাছে তেমনি মানুষের জীবনেও অাসে জোয়ার ভাটা , সমুদ্রের সঙ্গে মানুষের এখানেই মিল ।

দুটো মেয়ে , ছেলে ,স্ত্রীকে অামার সংসার । অামার বাড়ি ফুলপুর উপজেলার মদনপুর গ্রামে। নদীর ভাঙনে এই ব্রহ্মপুত্র নদীর চরে দোচালা বাড়ি করেছি , অামার ফুলপুর বাজারে একটা ফলের দোকান অাছে অার একটা কনফেকশনারীর দোকান করেছি কয়েক মাস অাগে ।

বাবা মা এর কাছে তাদের ছেলেমেয়েরাই সবকিছু । কিন্তু সন্তানের কাছে কি বাবা মা ই পৃথিবী !? হয়ত বা জীবনের কিছু সময়ের প্রয়োজনে সন্তানদের কাছে বাবা মা প্রিয়জন । সব বাবা মা এর মত অামি ও ভেবেছিলাম অামার ছেলে সোহেল অামাকে হাত ধরে ভবিষ্যতের দিকে নিয়ে যাবে । সংসারের হাল ধরবে সে । সেই হাত উঠেছে অামার দিকে তবে সাহায্য করতে নয় নির্যাতন করতে । টাকা দিতে না চাওয়ায় অামার ছেলে সোহেল ওর মাকে মারতে যায় অামি বাঁচাতে গেলে সে অামাকে অাঘাত করে । অামাকে
এখন অামার দোকানে থাকতে হচ্ছে প্রানের ভয়ে । সোহেল অামার গলায় ছুরি ধরেছে টাকার জন্য ।
অামার বড় মেয়ে রাহেলাকে পনের বছর বয়সে বিয়ে দিয়েছি গাইবান্ধার তাহের মিয়ার ছেলে অাশরাফ মিয়ার সঙ্গে । সে ভালই অাছে । ছোট মেয়ে রুমানা অাক্তার পড়ে ফুলপুর ডিগ্রি কলেজে । সে রোদ বৃষ্টি মাথায় নিয়ে ফুলপুর ঘাট থেকে নৌকায় পারাপার করে অাসা যাওয়া করে ।এই ঘাটে যাত্রি ছাউনি নেই , বসার ভাল জায়গা নেই, নৌকায় এই ঘাট থেকে নৌকায় উঠতে যে কি কষ্ট সেটা যারা যাওয়া অাসা করে তারা জানে । রেল কর্তৃপক্ষ অার নৌ পরিবহন কর্মকর্তারা শুধু যেন ঘাটের ইজারার টাকাটা নিয়েই দায়িত্ব পালন করেন যাত্রি সেবা করা বা ঘাটের উন্নয়ন করার কাজ যেন তাদের কাজ নয় । মানুষের দূর্ভোগ নিয়ে তাদের ভাবনা নেই কোন ।
অামার ছেলে সোহেল সঙ্গদোষে পড়ে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে । ক্লাস টেনের থেকেই হয়ত বা ও নেশায় অাসক্ত হয়ে যায় । ম্যাট্রিক পরীক্ষায় পাশ করতে পারে নি । তারপর ওকে অার পড়াশুনা করাতে পারিনি । ভেবেছিলাম অামার ছেলে দোকানে সাহায্য করবে , পড়ল না যখন । কুসঙ্গে পড়ে সে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ল । কারা ওর বন্ধু বা ও কিভাবে ও ইয়াবা কিনে অানতো কার কাছ থেকে বুঝিনি অামরা ।কোথায় কিনতে পাওয়া যায় অামি জানি না । বর্তমান প্রজন্মের মেধা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে মাদকের নেশায় । অামার ধারণা অামার ছেলে সোহেল মাদক নিত মনে হয় খুচরো বিক্রেতাদের কাছে থেকে । খুচরো বিক্রেতাদের নিয়ন্ত্রন করে গডফাদাররা । এই গডফাদারদের কেউ কেউ অাবার থাকে রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় ,তাই তারা থাকে পুলিশের ধরাছোয়ার বাইরে । মাদকের সরবরাহ রোধ করা গেলে হয়ত বা মাদকাসক্তের সংখ্যা অনেক কমে অাসত ।

৤ অামার দুটো মেয়ে রাহেলা অার রুমানা অাছে , কিন্তু না অামার মন চাইল একটা ছেলে । অামার স্ত্রী অার সন্তান নিতে চায় নি ,তবুও অামার জন্য সে মা হয় , সন্তানের জন্ম দিতে সে অনেক অসুস্হ হয়ে পড়ে , তখন অামার মেয়ে রাহেলা ওর মা এর সেবা করা , অামার দেখাশুনা করা ,রান্না করা , রুমানা কে খাওয়ান সবকিছু করেছে । ওর নিজেরই তো তখন ষোল সতের বছর বয়স । অামার ছেলে সোহেলকে খুশি রাখার জন্য অামার পক্ষে যা সম্ভব অামি করেছি । ছেলের জন্য ভাল কাপড় চোপড় , ভাল খাওয়া ,যখন যা চাইত তাই দিতাম । মেয়েদেরকেও বলতাম ভাইকে বেশি অাদর যত্ন করতে ।
সেদিন মসজিদের ইমাম সাহেব অামাদের বলেছেন " হযরত রাসুলুল্লাহ (সাঃ) হাদিসে বলেছেন ,' তোমাদের সন্তানদের মধ্যে মেয়েরাই উত্তম ।' ইমাম সাহেব অামাদের উদ্দেশ্য করে অারো বললেন " অাপনারা কি জানেন নবীজি বলেছেন ," যদি একটি পরিবারে একের পর এক কন্যা সন্তান জন্মগ্রহন করে এবং পিতামাতা যদি মেয়েদের যত্ন ও স্নেহের সঙ্গে প্রতিপালন করে তবে মেয়েরা পিতামাতাকে দোজখের অাগুন থেকে রক্ষা করবে । " ইমাম সাহেব অামাদের জিজ্ঞাসা করেন , 'ভেবে দেখেন তো নবীজি কত সুন্দর কথা বলেছেন কন্যা সন্তানদের নিয়ে অার অামরা মা বাবারা মেয়েদের বোঝা মনে করি সেজন্য বিয়ে দিতে পারলেই যেন বাঁচি , তা সে ছেলে যেমন ই হোক তাতে অসুবিধা হয় না । ছেলে না হলে বংশ রক্ষা করবে কে ? অামি মারা গেলে অামার অামার বংশ রক্ষা হল কি হল না তাতে কি কিছু অাসে যায় ? বলেন অাপনারা ?"

সেদিন মসজিদের ইমাম সাহেব এর কথা অামার হঠাৎ অাজকে অামার মনে পড়ল । ছেলেকে অামি মাদকাসক্তি থেকে মুক্ত করার অনেক চেষ্টা করেছি ।কিন্তু কিছু লাভ হয় নি । মাদকের টাকার জন্য সে অামাদেরকে মারধোর করা শুরু করে । ঘরের জিনিসপত্র বিক্রি করে মাদকের টাকা যোগার করত । অনেক সময় ঘরের অাসবাব পত্র ভেঙে ফেলত টাকা না দিলে । রাহেলা গতবছর ঈদে এসেছিল বাবার বাড়িতে , তখন অামার ছেলে সোহেল ওর বোনের অলংকার চুরি করে দেয় ,এতে রাহেলা মনে অনেক কষ্ট পায় । তারপর থেকে ও অার অাসে না অামাদের বাড়িতে ।

অামার ছেলে সোহেল বদলে গেছে ,এখন সে ইয়াবাসেবী ,নেশায় মত্ত । নেশার টাকার জন্য এখন পারে না এমন কোন কাজ নেই । অামি বাবা হয়ে অাজ নিজেই নিজের ছেলে সোহেলকে পুলিশের কাছে তুলে দিব । মানসিক অশান্তির চেয়ে বড় শাস্তি অার নাই ।মাদকাসক্ত ছেলের শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতনে অামার জীবন অতিষ্ট হয়ে গেছে । অামি পলাশবাড়ি থানায় গিয়ে পুলিশের কাছে অামার ছেলে সোহেলের বিরুদ্ধে নালিশ করব যাতে তারা ওকে অাইনের মাধ্যমে শাস্তি দেন । বিপথগামী ছেলের এই পরিনতি দেখা একজন বাবার কাছে কতটা যন্ত্রনাদায়ক তা কেউ বুঝতে পারবে না । অামি অাস্তে অাস্তে উঠলাম । সন্ধ্যা হওয়ার অাগেই অামাকে থানায় যেতে হবে ।।

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

    advertisement