সূর্য্য-স্নাত দুঃখগুলো বুঝতে দিলে না তো কভু,
এখন কেমন আতকে উঠি সুখ পরবের মাঝে তবু।

সারা জীবন খেটেই গেলে তুলে দিতে এ মুখে ভাত,
শিষ্টভাবে পোহায় যেন ক্ষুধায় ঢাকা সে ঝড়ো রাত।

ভয় ভাবনা ছিলনা তো সূর্য্যি কেমন কোমল উঠে,
হাসির ছোঁয়া থাকতো লেগে আদর ঝরা কোমল ঠোঁটে।

একটা রকম নির্ভরতা অন্য রকম স্নিগ্ধ আবাস,
দগ্ধ মনে আসতো বয়ে ক্লান্তি হরা শীতল বাতাস।

বাস্তবতার কঠিন চাপে ভিঁজছি জলে পুড়ছি খরায়,
আজকে তোমার স্নেহের পরশ মনটি কেমন অঝর পোড়ায়।

যেথায় থাকো ভাল থেকো, প্রভুর কাছে এই মিনতি,
বইছে বুকে অশ্রু ধারা ক্ষয় কভু নেই,নেই বিরতি।