বেরিয়ে যাই মাঝে মাঝে অন্ধকার ভেঙে রাস্তায়
নিঃশ্বাস শরীরহীন, শূণ্যতার পেণ্ডুলামে
জীবন দুরুহ পথের পথিক তবে;
চোখে বাস্প নেই এক ফোঁটাও
অশ্রুর গতি স্রোত থেমে গেছে কবে ।

কাক ডাকা ভোর আসে কৌতুকি আকাশে
রুগ্ন শয্যার ভিতর; রোদের আনন্দে
নিদ্রাহীন আমি পথ হাটি
শিশিরে আমার মুখ ভাসে;
কে আমার উত্তরপ্রণেতা ?
তারে খুঁজি ফিরি আমি সরল দূর্বা ঘাসে ।

হয়তো দেখেছি তারে আমি নির্ঘুম মাঝ রাতে
চুম্বনের গভীরে বসে ছিল প্রেমের আসন পাতে;
চুমোর অন্বেষনে, অশ্রুপাথার কূলে
আমি বাস্পহীন যাযাবর কি হয়েছে তাতে ?

কি আর হবে ? সব তো গেছে
জন্মভোরের সূতিকাগার থেকে
রাত্রি দুর্বার যাত্রাপথে চলি মরিচীকার পিছু পিছু
দুঃখ, দুর্দশা সব ফিরে আসে
আর অশ্রু কিছু কিছু ।