আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন জেগেছিল প্রানে,পাখির ডানায় ভর করে নয়।
দিগন্তকে সীমাহীন করে সমস্ত বাংলা জুড়ে,স্বপ্নটাকে সত্য করেছিল বাংলাবাসী।
এ প্রেম দেশপ্রেম,এই প্রেমোদায় আমি কোথায় রাখি!
আজাদের মা স্বপ্ন দেখেছিল—
স্বাধীনদেশে তার আজাদ ঘুরে বেড়াবে।
মায়ের স্বপ্ন বৃথা হতে পারে না তাই স্বপ্ন যখন সত্য হল,
আজাদ সারা বাংলাদেশের আকাশে বাতাসে মিশে একাকার হয়ে গেল।
আজাদের এই দেশপ্রেম আমি কোথায় রাখি!
আজাদ মায়ের কাছে দু’লোকমা ভাত খেতে চেয়েছিল,
মা,সে ভাত আজাদের মুখে তুলে দিতে পারেন না।
শেষ সময়টা আজাদের জেলের মাটিতে শুয়েই কেটেছে।
তাই মায়েরও আর শোয়া হয়নি বিছানায়,মুখে তোলেননি অন্ন ১৪টি বছর।
অনাহারে অনারম্বে কেটেছে রাতদিন মাস বছরের পর বছর।
এই প্রেমোদায় আমি কোথায় রাখি!
মায়ের কবরের ফলকে নিজের নামেপাশে আজো লেখা আছে “আজাদের মা”।
এ নামেই মা পরিচিত হতে চেয়েছেন বাংলার মানুষের কাছে।
প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম শতাব্দী থেকে শতাব্দি
যত ইতিহাস লেখা হোক যতবারই লেখা হোক,
“ আজাদের মা”এই পরিচয় মোছা যাবে না,অক্ষয় অম্লান হয়ে রবে চিরকাল।
এই ছিল তার স্বপ্ন,তার শেষ চাওয়া ।
এ প্রেম দেশপ্রেম,এ প্রেমোদায় আমি কোথায় রাখি!