রাত নিজ্জুম,মন পুড়ে হয় খাক
নিশ্চল ভূধরে স্বর্গীয় প্রতিমা ঝরে
নীল জোসনায় হেটে বেড়ায় মা
আলোর কোমলতা আর নারীর কোমলতা
যেন এক সূত্রেই বাধা পরে।
জোস্নায় মন রাঙে, মায়ের কথায় বিষাদ ভাঙ্গে
আধার হটে প্রণয় ফোটে কোমল ছূয়ায় আদর জোটে।
হাহাকার চারপাশ শুক্ষ আসবাব পত্র
তোমায় খোঁজে, পরশ নিতে-
আমিও তাই তোমায় স্বরি জোস্নালোকে
রাত-বিরাতে, ভোর প্রভাতে।
শুন্যতাকে আগলে রাখি কোথায় তুমি? চোখ পড়েনা?
নীল আসরে কষ্ট মাখি আঁচল ছায়া তাও দিলেনা!!!!
মধুর সুরে নিশিত পাখি ঘুম পাড়ানি গায়
তোমার হয়ে ভোরের পাখি চোখ পাকিয়ে যায়।
মিষ্টি কথায় মৃদ পলক ফেলতে যখন তুমি
ঘোমের ঘরে স্বপ্নালোকে হারিয়ে যেতাম আমি।
নিদ্রাপাশে চেয়ে চেয়ে রাত করিতে পাড়
এখন তুমি বিভূর ঘুমে, আমার আলো ও এখন আধার!!