কবি, কিসের দণ্ড এতো
কাব্যে শুধু অভিযোগ আর অভিমান।
কাদের তুমি শত্রু ভাবো,
কিসের জ্বালা বুকে বয়ে,
কণ্ঠে ঝরাও অগ্নি গান।

স্বাধীন দেশে স্বাধীন সবাই
নিয়মনীতির নাই পরওয়া তাই।
আমাদের দেশ আমরা মালিক
পথ-ঘাট, নদ-নদী-খাল, যেদিক তাকাই।

দখল করি গায়ের জোরে, ছ তলা গড়ি দু তলার পরে।
উন্নতির এই রোল মডেল, চোখে কি তোমার পড়েনা।
নাকি আমাদের পেট ভরা দেখে, তোমাদের পেট ভরেনা।

গোটাকয় মরুক জলে ডুবে,
গাড়ি চাকাতে কজন পিষুক।
ভবন ধ্বসে পড়বে বলে
বলবে তুমি আমাদের অবুঝ।

কবি, তোমার লেখা থামাও
আলোচনাতে হবে সমাধান।
ডলার, পাউন্ড কি চাই তোমার,
কিসে, বিদ্বেষের হবে অবসান।

জাতির বিবেক ঘুমিয়ে আছে।
যুদ্ধ করে ক্লান্ত বেশ।
সেই যে তারা ৭১ রে, সব শত্রু করেছে শেষ।
এখনতো সবাই বাঙ্গালী আমরা
কেন তুমি তা বুঝছোনা।
মিছেই কেন বাঙ্গালীর সাথে,
তোমার এতো বৈরিতা।

মাথা নত করেনি বলে,
যুগে যুগে গেছে কত প্রাণ।
সে সব নিয়েও করেছ তোমরা
কালে কালে কত কাব্য-গান।

কবি, তোমার কাব্য থামাও
নয়তো হবে নিরুদ্দেশ।
চক্ষু ছাড়া দেখবে কি করে
শস্য শ্যামল বাংলাদেশ।
অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে খোঁজ আজো বাঙ্গালীর শত্রু কে।
থাম এবার,
না হলে আঘাত,
হানবো তোমার অন্তরে।