স্বাধীনতা, তোমাকে খুঁজি সকালের ভেজা রোদে
কুয়াশায় ঢাকা কোন এক ভোরে ।
স্বাধীনতা তোমাকে খুঁজি ঘুমের ঘরে
হাতে নিয়ে রক্তিম পাতাকা ।

স্বাধীনতা, কোন এক বিকেলে
পতাকা হাতে বাতাসের সাথে
খোলা মাঠের ভেতর দৌড়ে দৌড়ে
চলেছিলাম মুক্ত মনে
অনুভবে ছোঁবো বলে তোমাকে।

স্বাধীনতা, তোমাকে খুঁজি মুক্ত মনে
মায়ের শাড়ীর আঁচলে ,
ঘুরে ফিরে এসে যেমনি করে ছোট্ট শিশুটি
এসে বসে মহীয়সী মায়ের কোলে ,
ঠিক তেমনি করে ।

স্বাধীনতা, তোমাকে খুঁজি
এপথ থেকে ওপথে,
পিপাসিত মনে চলতে চলতে
কোন এক অজানা পথিকের রূপ ধরে ।

স্বাধীনতা, তোমাকে খুঁজি তখনি
যখনি আসে পাখি ডাকা ভোর
চারদিকে মুখরিত থাকে
সোনালী রোদের আলো, ঠিক তখনি ।

স্বাধীনতা, তোমাকে খুঁজি ভরা রৌদ্র দুপুরে
হেটে চলা কোন এক বাঊলের একতারার সুরে,
যার গানে বাজে তোমার বীণ
স্বাধীনতা তুমি স্বাধীনতা ।

স্বাধীনতা, কিষাণের হাসি মুখে খুঁজি তোমায়,
খুঁজে পাই মসজিদে মুয়াজ্জিনের আযানের সুরে ।
স্বাধীনতা তোমাকে খুঁজি তখনি
যখনি ভেসে আসে
কোন এক গাছতলা থেকে রাখালের বাশির সুর ।
মধুর সুরে বলছে রাখাল স্বাধীনতা তুমি স্বাধীনতা
লাগছে সু-মধুর।