শিউলি ঝরা রাতে যখন তোমার সাথে আমার প্রথম দেখা
তখন মনে হয়েছিলো শিউলি ফুলগুলো বোধহয়,
সেই রাতে ঝরতে অস্বীকৃতি জানিয়ে ছিলো ।
ওরা যেনো শুধু শুরুভী ছড়াতেই ব্যস্ত ছিলো
তোমার আমার মন প্রাণ ভরাতেই বুঝি ওরা আর ঝরতে চাইতো না ।
এভাবে কত রাত যে কেটে গেলো.. বুঝতেই পারিনি ।
যখন তুমি আমার পাশে থাকতে না তখন আমি
উঠোনের কোণজুড়ে ভরে থাকা নির্মল হলুদ ঝিংগে ফুল গুলোর সাথে
তোমায় নিয়ে কত যে গল্প করতাম..........
ওরা যেনো আমার গল্প শুনে আনন্দে নেচে উঠতো ।
চাঁদনী রাতে আকাশ যখন তারায় তারায় পূর্ন থাকতো,
তুমি আমার কানে কানে বলতে,আকাশের দিকে তাকিয়ে দেখো-
তুমি আর আমি একই আকাশের নীচে ।
আর আমাদের এক হয়ে থাকার প্রমাণ হিসেবে থাকবে
আকাশে উঠা এক’ই সারির তিনটি তারা ।
আমরা যতই দুরে থাকি না কেন এই তিনটি তারার দিকে
তাকালে মনে হবে - আমরা এক সাথে পাশাপাশি আছি ।
আমাদের আত্বা এক,
শুধু দেহটাই ভিন্ন ।
তুমি যার আলোয় আলোকিত হতে চেয়ে চাঁদের আলো চাওনি
তার জীবনেই তুমি আঁধার ঢেলে চলে গেলে ।
এতো কিছুর পরও তোমার প্রতি আমার কোনো অভিযোগ নেই
নেই অভিমানও ।
তোমায় কতটা ভালোবেসে ছিলাম-তুমি তা কখনো’ই বুঝতে পারোনি
জানি, আজো বুঝতে পারবে না ।
কিন্তুু, আজ তোমাকে বলতে চাই-
তোমায় ভালোবেসে ছিলাম বলেই সেদিন আমি আমাকে
এক অদৃশ্য নিয়তির কাছে বিসর্জন দিয়ে ছিলাম ।
যেনো তুমি সুখে থাকতে পারো ভালো থাকতে পারো।
কারন, তোমার সুখেই যে আমার সুখ ।
তারপরও আমি বলবো,আজো তোমায় ভালোবাসি কিনা জানি না
শুধু এটুকু বলতে চাই-জীবনের যে কোনো প্রান্তে এসে
যেদিন তুমি হ্নদয় দিয়ে আমাকে তোমার কাছে ডাকবে
সেদিন’ই তুমি আমাকে তোমার কাছে পাবে ।
জানো, আজো যখন আকাশে তাকিয়ে সেই তিন তারা দেখতে পাই
তখন চোখ আপনা আপনি’ই বন্ধ হয়ে যায় ।
মনে হয় তুমি আমার পাশে এক আত্বা হয়ে মিশে আছো ।
যখন’ই চোখ খুলে তোমায় ছুঁতে চাই-
তখন’ই তুমি যেনো অমাবশ্যার চাঁদ হয়ে যাও ।
এখনো এই তিন তারা তোমার দেয়া মধুর বিরহের
স্বাক্ষ্য বহন করে যাচ্ছে, রাতের পর রাত......