আমি বৃক্ষের মত ভালোবাসবো তোমাকে,
রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে,কালবৈশাখী ঝড়কে উপেক্ষা করে
সহস্রাব্দীকাল ঠায় দারিয়ে থাকবো ঐ মেথুলাসের মত।
শুধু আমায় এক অর্থব আগন্তুক ভেবে
আমার রুক্ষতা, বৈরিতাকে আবার সত্যি ভেবে বসো না যেন,
আমি শিথিল অনুভূতি বিকারগ্রস্ত এক প্রাগৈতিহাসিক প্রেমিক।
যার খসে যাওয়া সুক্ষ্ণ চামড়ার মাঝখানেও
কখনো কখনো প্রেম হাসে..
যার শরীর স্তূপে লুকনো আছে অসংখ্য বুনোমেঘ।
একবার ছুয়েই দেখ না,
তোমার নখের ডগায়
সহসায় কাঁচের মত ভাঙবে উন্মাদ বৃষ্টিবিন্দু।
আমার আপাত মস্ত্রিস্ক জুড়ে তোমার অপূর্ণতা
কিন্তু তুমি বুঝতে পারো না.,
ইট,কাঠ আর পাঁথরের এই দেয়ালে
মৃত শৈবাল জমেছে তোমার অসংযত ঐশ্বর্যে ।
আমি আপেক্ষায় আছি এখনো
দুমড়ে মুচড়ে ফেল এ পার্থিব সংশয়,
অতঃপর
এক টুকরো গরম নিঃশ্বাস ফেল আমার হিমশীতল বুকে ।