লেখকের তথ্য

Photo
গল্প/কবিতা: ৩২টি

সমন্বিত স্কোর

৪.৬৫

বিচারক স্কোরঃ ২.৬৮ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৯৭ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - অবহেলা (এপ্রিল ২০১৭)

অন্তঃপুরবাসিনী!
অবহেলা

সংখ্যা

মোট ভোট ২৩ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.৬৫

নাসরিন চৌধুরী

comment ২৯  favorite ১  import_contacts ১,৫০৫
ত্রস্ত হরিণী'র মতো যে নারী কেঁপেছে প্রতিরাত স্বামী সঙ্গমে
সে দেখেনি ওই চোখে নিখাঁদ প্রেম, সে পায়নি আবেগী তৃষ্ণায় একফোঁটা শীতল জল
ভেসে যেতে পারেনি সে সুখের শীৎকারে কোনোদিন!
পতিব্রতা সতী'র দোহাই দিয়ে খুলে নিয়েছো তোমরা তার ইচ্ছার আবরণ
শতরঞ্জি বিছায়ে কামনার পেয়ালায় সাজিয়েছো নিজের মনোরঞ্জন!

পৃথিবী'র মসৃণ পথ হাঁটতে পারেনি সে, দেখেনি সোনালী সূর্যের রঙ
চাঁদের কণা গায়ে মাখেনি সে, শুনতে পায়নি কখনো বিশাল সমুদ্রের গর্জন
আকাশের নীলে ডানা মেলেনি সে, ঝর্নার জলে ভেজায়নি চরণ!
সে দেখেছে চারপাশে ভয়ার্ত সব চোখ,
শুনেছে কান পেতে দেয়ালের গোপন কান্না
জন্ম জন্মান্তর ধরে চলা বিভাজন দেখেছে সে
দেখেছে ঘনীভূত হয়ে আসা আঁধারের প্রবল বন্যা!

স্বর্গের লোভ দেখিয়ে যারে করেছো তোমরা “অন্তঃপুরবাসিনী”
অথচ প্রতিদিনই নরকের মাঝে তার বসবাস! চিৎকার করে বলে উঠে একদিন,
“পোড়াও তোমরা আমায় আরও আগুণের লেলিহান শিখায়
আমি সতী হতে চাই! আমি স্বর্গ চাই!”
অবহেলার বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে তার সকল অন্তর্বেদনা
চাপা পড়ে যায় দেয়াল ঘেরা সবুজ শ্যাওলায়!
এপাশটায় চিতা জ্বলে, ওপাশের দেয়ালে রঙ তুলির ছোঁয়া লাগে
এভাবেই লেখা হয় আবার নতুন কোনো পতিব্রতা সতী'র গল্প!

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement