তোমরা কি কেউ বলতে পারো
শীতের ওজন কত ?
এক কেজি, দুই কেজি, তিন কেজি, চার কেজি
উহু মনে হয় বিশ কেজি ।

নগর জীবনের চলমান যান্ত্রিকতায়
কখনো সখনো শীতের ছোয়ায়
অনুভবের প্রখরতায়
গায়ে তুলতুলে কম্বল জড়িয়ে
হালকা আমেজে উম হয়ে
কুয়াশার সাদা চাদরে ঢাকা প্রকৃতিকে
কেউ কেউ বলে উঠে
বাহ! কি অপরূপ সৌন্দর্য!
গলায় রঙিন পানি ঢেলে দিয়ে
শরীরটাকে গরম করে নিয়ে
আক্ষেপ ভরা উদাসী কন্ঠে
উহ! ঠান্ডা এত কম লাগছে কেন ?
ওজন টা মাত্র এক কেজি যেন!

হাড্ডিসার রুগ্ন মানুষ গুলো থাকে মিইয়ে
পাহাড় সমান শীত মাথায় নিয়ে,
এক টুকরো গরম কাপড়ের আশায়
দ্বিক-বিদ্বিক হন্যে হয়ে ছুটে বেড়ায়
অসহ্য ঠান্ডায় একটু উষ্ণতার জন্য
শীতার্ত মানুষ গুলোর বুকটা থাকে শূন্য।
কখন আসবে কাঙ্খিত সাহায্যের হাত
বেঁচে থাকার জন্য লড়াই করবে দিন-রাত
অসহায় চোখে অপলক থাকে তাকিয়ে
প্রকৃতির নির্মম নিষ্ঠুরতার দিকে
উফ মাগো ! কি যন্ত্রনাময় ঠান্ডা !
ওজনটা যেন বিশ কেজি, একেবারে চার গন্ডা !

আঙ্গুরপোতা দহগ্রামের কুঁড়েঘরে বাস করে
হাড়কাপানো শীতে ধুকে ধুকে মরে
কনকনে তীব্রতার যে তীক্ষ অনুভুতি,
অট্টালিকায় এসি রুমে বসে থেকে
হিম হিম ঠান্ডায় জমজমাট পার্টি ডেকে
উদযাপনের যে হালকা আমেজ ফুর্তি,
দুটোর ওজনে নিশ্চয়ই হবে অনেক ব্যবধান
এক কেজি থেকে বিশ কেজির সমান ।