বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২ জানুয়ারী ১৯৭৫
গল্প/কবিতা: ৪২টি

সমন্বিত স্কোর

৫.১৫

বিচারক স্কোরঃ ২.৭৫ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.৪ / ৩.০

৩০ নাম্বার রমেশ সেন রোড

প্রশ্ন ডিসেম্বর ২০১৭

রেপ্লিকা

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী নভেম্বর ২০১৭

সোনাবন্ধু

অবহেলা এপ্রিল ২০১৭

প্রত্যয় (অক্টোবর ২০১৪)

মোট ভোট প্রাপ্ত পয়েন্ট ৫.১৫ প্রথম পাপ

মোজাম্মেল কবির

comment ২০  favorite ১  import_contacts ১,৫৫২

মানুষের ভিতরে ভালো কিংবা মন্দ কেউ এক জন বাস করে। দ্বৈত চরিত্রের ধূর্ত অদৃশ্য এক মানব কিংবা দানব। কখনো ভালো কাজে বাঁধা দেয় কখনো খারাপ কাজে। কাজ শেষ হলে আবার উল্টো আচরণ করে। অনৈতিক কোন কাজে উৎসাহ যুগিয়ে বিপদে ফেলে পরে আবার তাচ্ছিল্য করে। ব্যাঙ্গ করে। আগুনে তুষ ছিটায়। জবাকে সে এভাবেই বিপদে ফেলেছে। জবা লড়ে যাচ্ছে তার সাথে। যুক্তি তর্ক করে জয়ী হওয়ার চেষ্টা করছে।
-স্বামীর সাথে দুই চারটা সত্যি গোপন করা কি খুব অন্যায়?
-হ্যা অন্যায়, শত ভাগ অন্যায়। জবা উত্তর দেয়।
-ভাব খানা এমন যে এর আগে আর একটাও সত্যি গোপন করিস নি!
-ঠিক তাই,এর আগে আর করিনি। এটাই প্রথম।
-বিয়ের আগে যখন প্রেম করতি তখনো না?
-তখনো না।
-তো এখন কি করতে চাস তুই?
-মরতে চাই।
-অন্যায়টা কি তোর কাছে এতই গুরুতর মনে হচ্ছে?
-হ্যা,কাজটা পাপ হয়েছে।
-রাখ তোর পাপ! এমন পাপ সবাই করছে অহরহ!
-আমি কেন করবো?
-তুই কি স্বর্গের বড়ুই পাতা? মক্কার খুরমা খেজুর?
-আমি তার চাইতেও দামী কিছু। আমি মানুষ। তাই আমার মরা উচিৎ।
রেল লাইন ধরে হাটতে হাটতে জবা নিজের ভিতরের রহস্যময় চরিত্রটির সাথে এভাবেই তর্ক বিতর্ক করছিলো।

সে মরতে চায় অভিমানে নয় অনুতাপে। নিজকে কৃতকর্মের শাস্তি। রেল লাইন ধরে হাটতে হাটতে সিদ্ধান্তটা যখন মোটামুটি পাকা। এর পর যে ট্রনটা আসবে তার চাকার নিচেই... সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। এমন সময় তলপেটে একটা তীব্র ব্যথায় হাত দিয়ে চেপে ধরে রেল লাইন থেকে সরে দাড়ায় জবা। এতোক্ষণ ধরে ভেবে চিন্তে যুক্তি তর্ক করে নেয়া সিদ্ধান্ত মুহুর্তেই এলোমেলো হয়ে যায়। পেটে যে তার আরেক জন মানুষের অস্তিত্ব বেড়ে উঠছে। তিন মাস হয়নি এখনো। এই অনাগত সন্তানের বাবা জামান। তার স্বামী। একে হত্যা করে নিজে মরার বিলাসী ইচ্ছে অন্যায় না শুধু, এ আরেক পাপ।


পুরো ঘটনাটাই ছিলো আসলে খামখেয়ালী। ছেলেখেলায় এত বড় ভুল হয়ে যাবে তা আসলে জবা বুঝতে পারে নি। এক সময় অন্যের এমন অপকর্মের গল্প শুনে ছি ছি করতো, আর আজ কিনা নিজেই! ছি...!

স্বামী হিসাবে জামানের তুলনা হয় না। ছয় বছরের সংসার জীবনে এক বারও গায়ে হাত তুলেনি। বাজে গালী দেয়নি। অভিমানে এক দুই দিন কথা কম হয়েছে। তার পর সে আদরে আদরে কড়ায়গণ্ডায় পুষিয়ে দিয়েছে। নিজের প্রতি ক্ষোভটা সেখানেই।
গত বছর দুই ধরে একটু ব্যস্ততা বেড়েছে। সময় কম দেয়। যখন চাকুরী করতো তখন ছুটির দিনগুলো কতো আনন্দে কেটেছে। এখন ব্যবসা করে। ছুটির দিন বলে কিছু নেই। কিন্তু সংসারে কি স্বাচ্ছন্দ্য বাড়েনি? একটা ল্যাপটপ খুব শখ ছিলো। পুরোনো হোক তাওতো নিজেদের একটা গাড়ি। ভাড়ায় হোক একটা এ্যাপার্টমেন্টে নিজেদের গোছানো সংসার। জামান এও বলেছে দু চারটা বছর ধৈর্য ধরলে নিজেদের একটা বাড়ী হবে। আর এরই মধ্যে কি না...
এই ল্যাপটপ যন্ত্রটাই সব কিছুর মূল! আরে, শুধু শুধু একে আবার দোষ দিচ্ছি কেন!যেই জল তৃষ্ণা মিটায় সেই জলে লাফিয়ে যদি আমি ডুবে মরি তার জন্য তো আর জল দায়ী না!
ফেসবুকে প্রায় বছর খানেক ধরে তেপান্তর নামে যুবকের সাথে পরিচয়। এর নাম আসলেই তেপান্তর কি না জানা নেই জবার। নিশ্চই ছদ্ম নাম। তেপান্তর আবার বাস্তবে মানুষের নাম হয় কি করে। যাই হোক ব্যাক্তিগত বার্তায় সকাল দুপুর যোগাযোগে জবার প্রেমে পরে যায় ছেলেটি। দুষ্টুমির ছলে জবাও যে এক পা দুই পা এগোয় নি তা নয়। বাসায় একলা সময় কাটে না। মানুষ যখন একলা থাকে মন তখন স্বেচ্ছাচারী। নৈতিক অনৈতিক ভেদাবেদ ভুলে যায়। তাই বলে শেষ পর্যন্ত ব্যাপারটা এতো দূর গড়াবে!

ছয় মাস হয়ে গেছে তেপান্তর একটি বার জবাকে মুখোমুখি দেখার জন্য পাগল হয়ে গেছে। জবার স্বামী সংসার আছে এই কথাটি পর্যন্ত মানতে চাইছে না। এক বার শুধু দেখবে তার পর বাকী জীবন আর বিরক্ত করবে না জবাকে। জবা মনে মনে নিজেও যে মোহাচ্ছন্ন হয় নি তাও সে বুকে হাত দিয়ে বলতে পারবে না।


তেপান্তর নিজে গাড়ি চালাচ্ছে। কারো মুখে কথা নেই। জবা যেমনটি ভেবেছিলো, কল্পণায় তেপান্তরের যেমন ছবি একেছিলো বাস্তবে আনেক বেশী আকর্ষণীয়। চোখের ইশারায় যেনো দুনিয়া জয় করতে সক্ষম। বয়স ত্রিশ একত্রিশ। তার পাশে বরং নিজেকে বড় বেশী বেমানান লাগছে। গাড়ি নব্বই থেকে একশ কিলো গতিতে চলছে। জবা নির্বাক। এইটুকু বলার সাহস হচ্ছে না -আমাকে তো দেখলে এখন নামিয়ে দাও গাড়ি থেকে। কিংবা কোথায় নিয়ে যাচ্ছ আমাকে?
কিছু সময় আসে মানুষ নিজেকে রক্ষার অস্ত্র গুলো ব্যবহার করতে পারে না। শত্রু পক্ষের প্রবল শক্তির সামনে আত্মসমর্পণ তখন একমাত্র পথ। ভিতরের ধূর্ত দানবটি তখন ধরা দিতে ইন্ধন যোগায়। ভুলকে ভুল বলে মনে হয় না। ভুল শুদ্ধের তরল দুটি ভিন্ন রঙ একাকার হয় নীল সরোবরে। মানুষ লাফিয়ে ইচ্ছে মতো সাতার কাটে কেউ আবার ডুবে মরে। মরে আনন্দ পায়। এক বার মরে। বার বার মরে।

গাড়ি রাজেন্দ্রপুর বড় রাস্তা থেকে বাম দিকে বনের মধ্যে মোড় নেয়। ইটের সলিং করা রাস্তায় তিন চার কিলোমিটার পথ । দুই পাশে শালবন। একটা লোহার গেটের সামনে গাড়ি থামে। একটা হর্ন বাজে সাথে সাথে গেট খুলে যায়।
ভিতরে ঢুকে গাড়ি পার্ক করে ড্রাইভিং সিট থেকে নেমে পাশের দরজা খুলে হাত বাড়িয়ে দেয় তেপান্তর। জবা রোবটের মতো নিজের হাতটা তুলে দেয় তেপান্তরের হাতে।
জবা মুগ্ধ হয়ে দেখছে চার দিক। এত সুন্দর জায়গা এর আগে দেখেছে বলে মনে করতে পারছে না। এমন সুন্দর জায়গা শুধু মনে মনে কল্পনা করা যায়।
একটা ক্যানেল তার উপরে কাঠের সেতু। তার পর খোলা মাঠ। মাঠে মখমলের মতো সবুজ ঘাস। মাঠের বাম পাশে কংক্রিটের ব্লকে তৈরী পায়ে হাটা পথ। পথের দুই পাশে সোনালী দুরন্ত পরিপাটি ছেটে রাখা। শেষ প্রান্তে আড়্ই তলা একটি বাড়ি। জনশূন্য বাড়ী বলে মনে হচ্ছে। মাঠের উত্তরে সবুজে ঘেরা পুকুর। পুকুরের পূর্ব কোনে একটা ঘর উপরে টিনের চাল। ঘরের অর্ধেকটা পুকুরের উপর। দক্ষিণ দিকে বারান্দা। সামনে একটা ছোট্ট জলাধার মাঝখানে ফুয়ারা। পাঁথরে বাধাই করা চার পাশ। ঘরের সামনে লেখা আছে বৃষ্টি বিলাশ।

জবা আড়াই তলা বাড়ির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। গেটে শুধু একজন দারোয়ানের দেখা পেয়েছে। নীচ তলায় তিন চারটি রুম, সামনে বিশাল একটা কাচের ঘর পর্দায় ঘেরা। ভিতরে কি আছে দেখা হয় নি। একটা প্যাঁচানো কাঠের সিড়ি বেয়ে তেপান্তরের পিছনে পিছনে দোতলায় উঠে গেলো। ডানে বায়ে দুটি ঘর তার পর বিশাল আকারের আরেকটি রুম। চার পাশে ক্যাকটাস অর্কিড আরা দুর্লভ সংগ্রহে পূর্ণ এক সংগ্রহশালা। মাঝখানে বিছানা। এক পাশে ডাইনিং টেবিল। গোটা বিশেক পদের ফল আর রান্না করা নানা খাবারে সাজিয়ে রাখা টেবিল।
দক্ষিন দিকে কাচের দেয়াল দেখে বুঝার উপায় নেই তার পর আসলে কি আছে। তেপান্তর জবার হাত ধরে স্লাইডিং ডোর টেনে দেখিয়ে দেয় এটা ওয়াশ রুম।
জবা ভিতরে ঢুকে আরেক বার অবাক হয়। এই ওয়াশ রুমের চাইতে তাদের মাষ্টার বেড রুমের সাইজ বেশ অনেকটা ছোট হবে। কি নেই এর মধ্যে!

এর পর জবা আর কিছু মনে করতে চাইছে না। মনে করতে চাইছে যা কিছু ঘটে গেছে সবই ছিলো কল্পনায়। অথচ সব কিছু ঘটে গেছে বাস্তবে, রক্ত মাংসের শরিরে শিরা উপশিরায়... কিন্তু ভিতরের জন্তুটা অত্যন্ত বিশ্রী ভাবে উপহাস করে যাচ্ছে। এখন আবার প্ররোচনা দিচ্ছে লুকিয়ে যেতে, গোপন করতে। এতক্ষণে জবা বুঝে গেছে সে যদি আবার তার কথা শোনে তাহলে বার বার তাকে লালসার কাছে হার মানতে হবে। জবা হারতে চায় না বরং মরবে। কিন্তু এখন সে মরতেও পারছে না। মৃত্যুর এতোটা কাছে থেকে ফিরে আসায় এখন ভিতরের পশুটা উপহাস করছে। মরে যাওয়া যেনো খুব সহজ ছিলো, বেচে থেকে বহুরুপী বদ চরিত্রের সাথে লড়ে জয়ী হওয়া বরং অনেক বেশী কঠিন।


উত্তরা চার নাম্বার সেক্টরের পূর্ব পাশের রেল লাইন। একটা স্লিপার থেকে আরেকটা স্লিপার বেশ লম্বা করে পা ফেলতে হয়। এই কারণেই তল পেটের ব্যথাটা শুরু হতে পারে। এখন রেল লাইন ছেড়ে পাশ দিয়ে হাঁটছে জবা। পাঁথরের উপর পা ফেলতে ভয় লাগছে। পা পিছলে যেতে পারে। মাথাটাও দুলছে ডানে বায়ে। বাসা সাত নাম্বার রোড। হেটে গেলেও আট দশ মিনিট লাগবে। হেটে যাওয়ার মতো শক্তি নেই শরিরে। বাম দিকের গলিটা ঢুকে গেছে সেক্টরে। এখানে সব সময় দুই চারটা রিক্সা দাড়িয়ে থাকে। একটা রিক্সায় উঠে বসে জবা -সাত নাম্বার রোড।

বিকেল চারটায় কাজের বুয়া আসে। এখন পাঁচটা বাজে। এসে ফিরে গেছে হয়তো। ফাঁকা বাড়ি। দরজা খুলে বাসার ভিতরে ঢুকে ঘরের আসবাবপত্র দরজা জানালার পর্দা টিভি ফ্রিজ সব কিছুকে পর মনে হচ্ছে। মনে হচ্ছে ঘরের এই সব জড় পদার্থ গুলও ঘৃণার দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে আছে জবার দিকে। ক্লান্ত শরিরে চার হাত পা ছড়িয়ে বিছানায় শুয়ে সাথে সাথে ঘুম আসে চোখে।


কদিন ধরে জবার শরিরটা ভালো যাচ্ছে না। বেশী রাত না করে একটু আগেই চলে আসে জামান। শরির ভালো থাকলে এই অসময়ে ঘুমোতো না। অন্যমনস্ক লাগছে কিছু দিন ধরে। সংসারে নিজের অমনোযোগ এর জন্য দায়ী বলে মনে করছে জামান।
বেল চেপে ঘুম ভাঙাতে হয় সে জন্যই একটা চাবি রেখেছে নিজের কাছে। বাসায় এসে গোসলটা সেরে বিছানায় ঘুমন্ত জবার পাশে বসে। ঘুমিয়ে থাকলে জবার মুখটা শিশুর মতো লাগে দেখতে। মাথায় হাত রেখে চুলে আঙ্গুল চালাতেই চোখ খুলে জবা। জামানকে দেখে চমকে উঠে। কিছুটা ভয় পায়। বার বার তেপান্তরের শরিরের শক্ত পেশী গুলো ভেসে উঠে।
বিকেলে ডাক্তার আসিফ এসেছিলো? জামান বলে।
জবা কি উত্তর দিবে কিছু মনে করতে পারছে না। ডাক্তার কি সত্যিই এসেছিলো!
জামান উত্তরের অপেক্ষায় না করেই বলে-ডাক্তার সাহেব বলেছে ভয়ের কিছু নেই। কদিনের জন্য ঘুরে আসতে পরামর্শ দিলেন। উঠো হাত মুখ ধুয়ে খেয়ে নাও। আর ব্যাগ গুছিয়ে নাও। সাত দিনের জন্য আমরা কক্সবাজার যাচ্ছি। কাল সকাল দশটা বিশে ফ্লাইট।
ব্যাগ থেকে বিমানের টিকিট জবার বালিশের পাশে রেখে আবার বলে -উঠো।
জবা তেপান্তরের বনের বাংলোটার কথা ভুলতে পারছে না। কিছুতেই মন থেকে দূর করতে পারছে না সব কিছু। ঘটনার সত্যি মিথ্যে নিয়ে জবাব দিতে হয় মানুষের কাছে। নিজের পাপবোধের জবাব দিতে হয় নিজেকেই। এ আরো বেশী বিব্রতকর।
এতোক্ষণ জবা ভেবেছে অন্য কিছু কিন্তু অপলক চেয়েছিলো জামানের দিকে। জামান বুঝতে পারে জবা মনে মনে একটু সাহায্য আশা করছে। দুই হাতে ধরে তুলে বসিয়ে দেয় বিছানায়। দুই ফোটা জল জবার গাল বেয়ে গড়িয়ে পরে ।


রাতে ব্যাগ গুছিয়ে ল্যাপটপ অন করে জবা। অনলাইনে বসে একবার সিদ্ধান্ত নেয় তেপান্তরকে ফেসবুকে ব্লক করবে। সিদ্ধান্ত পাল্টে সে জবা খন্দকার নামে ফেসবুক আই ডি স্থায়ী ভাবে বন্ধ করে দেয়। জামান তাকে মুনা নামে ডাকে। নতুন আই ডি ওপেন করে। নাম মুনা জামান। একমাত্র বন্ধু জামান। তার আর ভার্চুয়াল বন্ধুর প্রয়োজন নেই। ভার্চুয়াল বন্ধু স্বেচ্ছাচারী মনের গোপন দরজায় অসময়ে টোকা দেয়। টার্নঅফ করে ল্যাপটপ লাগেজে ঢুকাতে যেয়ে বাম হাতের ইনজেকশনের ব্যথাটা টনটন করে উঠে । সকালে ডাক্তার আসিফ ঘুমের ইনজেকশন দিতে লোক পাঠিয়েছিলো।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • নেমেসিস
    নেমেসিস অশেষ অভিনন্দন!
    প্রত্যুত্তর . ২৮ নভেম্বর, ২০১৪
  • আসাদ জামান
    আসাদ জামান মনে হচ্ছে বাস্তবের সংগে একেবারে মিশে গেছে। শুভেচ্ছা আর ধন্যবাদ রইলো।
    প্রত্যুত্তর . ২১ অক্টোবর, ২০১৬
  • মোজাম্মেল  কবির
    মোজাম্মেল কবির বাস্তবের সাথে এই গল্পের কোনো চরিত্রের সাথে কারো মিল নেই। সম্পূর্ণ কাল্পনিক লেখা। পুরোনো লেখাটি পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। এর পর আরো লেখা আছে যে গুলো বাস্তবের সাথে মিল আছে।
    প্রত্যুত্তর . ২১ অক্টোবর, ২০১৬