অমাবস্যা কিংবা পূর্ণিমা একে অপরের এপিঠ ওপিঠ । প্রেয়সী কিংবা পতিতার গর্ভে অঙ্কুরিত ভ্রূণটি নিঃসন্দেহে নিষ্পাপ ফেরেশতা তুল্য । সব জেনেশুনে দায়ী এই গনতন্ত্র কিংবা সমাজ সেই পরিচয় দেবে না কিন্তু ট্যাটুর মতো বস্ত্রের অন্তরালে অমাবস্যার অন্ধকারের মতই রেখে দেবে স্থায়ীভাবে আবার পূর্ণিমার আলোয় আলোকিত করবে নতুন নামনাজানা ফেরেশতাদের । পার্থিব এটাই , মানুষের পার্থিব ।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৫ জানুয়ারী ১৯৮৭
গল্প/কবিতা: ২১টি

সমন্বিত স্কোর

৫.৫৭

বিচারক স্কোরঃ ২.৮৭ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.৭ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - পার্থিব (আগস্ট ২০১৮)

গনতন্ত্রের ট্যাটু
পার্থিব

সংখ্যা

মোট ভোট ২৭ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৫.৫৭

রাজু

comment ৭  favorite ০  import_contacts ১৫৭
ভোর হয়েছে অভিশপ্ত সূর্যোদয়ের আগে
অজানা আলোয় আলোকিত সামাজিক অন্ধকার;
সুবাসিত ফুল চাঁদের আলোয় মূর্ছা যায় প্রতিনিয়ত ৷

পার্থিব আনন্দে উশৃঙ্খল
বিবমিষায় চেটেপুটে ক্ষান্ত এ সমাজ ।
অযতনে ঐ বিষাক্ত কারখানায় জন্মেছিল ফেরেশতা এক
হারিয়ে যাবার খানিক আগে
একটি বেনামী চিরকুটে নিয়তি লেখা ছিল তার ।

আর...
শহরের দেয়াল খুবলে ট্যাটু করে গনতন্ত্রেরা
জেগে থাকে ঐ অমাবস্যায় ৷

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement