বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
গল্প/কবিতা: ১০টি

সমন্বিত স্কোর

৫.২৮

বিচারক স্কোরঃ ২.৬৪ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.৬৪ / ৩.০

keyboard_arrow_leftবৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী (নভেম্বর ২০১২)

আপাকু পিথ্রীঃ গরু এবং একজন আলু
বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী

সংখ্যা

মোট ভোট ১৬৭ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৫.২৮

সিয়াম সোহানূর

comment ৪১  favorite ৩  import_contacts ৯২৩
০১

চোখ খুলেই চোখের যন্ত্রণা অনুভব করতে পারলেন ইকুচু পিকু । বেশ তীব্র ব্যথা । চোখের দু কোণ গলে পানি পড়ছে । কিন্তু যন্ত্রণার কোন কারণ বুঝতে পারছে না । তাকাতে কষ্ট হচ্ছে । মনে হয় আলোর সাথে এডজাস্ট হচ্ছে না । ইকুচু কতক্ষণ চোখ বন্ধ করে থাকল । মানুষের মত ওর দুটি চোখ নয় । একটি । ঠিক কপালের মাঝখানে । অদ্ভুত ব্যাপার । কিন্তু ওদের গ্রহে এটাই স্বাভাবিক ।

আসলে ইকুচু মানুষ নয় ; ভিন গ্রহের প্রাণী । খুব বুদ্ধিমান । আই কিউ ৭৮০ র উপরে । ওর গ্রহের অন্যান্যদের তুলনায় বেশ খানিকটা বেশি । বয়স ৫৫৫ বছর । পৃথিবীর হিসাবে নয় ; ওদের হিসাবে । ছোট খাট গড়নের । দাঁড়ি - গোঁফ নেই । একদম লোমহীন শরীর ।
শিশু সুলভ চপলতা আছে ; কিন্তু ধীর স্থির ও সাবধানী ! তাই ওকে বাছাই করা হয়েছে । ওকে যে উদ্দেশ্যে পৃথিবীতে পাঠানো হয়েছে --- তার নাম আপাকু পিথ্রী ! মানে অপারেশন পৃথিবী !

ওদের দেশের বিজ্ঞানীরা দীর্ঘ দিন যাবত পৃথিবীর উপর নজর রাখছে । এই গ্রহের প্রাণীদের বিভিন্ন আচরণ তাদের ব্যাপক কৌতূহলী করে তুলেছে । তাই তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছে পৃথিবীর একজন বুদ্ধিমান বালককে তুলে আনতে হবে । তার উপর গবেষণা করতে হবে । তাদের উন্নতি ও রহস্যের জাল ভেদ করতে হবে । যেই কথা সেই কাজ । ইকুচু পিকুর উপর পড়েছে সেই মহান কাজের দায়িত্ব । নেপচুনের বিজ্ঞানীরা মনে করেন উপযুক্ত পাত্রেই গুরু দায়িত্ব বর্তানো হয়েছে । কারণ এর আগেও এই ধরণের মিশনে আরও দুজনকে পাঠানো হয়েছিল ; কিন্তু তারা ব্যর্থতার ষোলকলা পূর্ণ করে তবেই হাল ছেড়েছে । তাই কর্তৃপক্ষ আশা করছে এবারের মিশন অবশ্যই সাকসেসফুল হবে ।

গরু হচ্ছে মহাবিশ্বের সবচেয়ে বুদ্ধিমান ও চালাক প্রাণী । যাদের দিয়ে মানুষেরা হাল চাষ করায়, গাড়ী টানায়, দুধ দোহন করে , ঘোড়ার মত পিঠে চড়ে এবং কোরবানি করে মাংস খায় । এতকিছুর পরও গরুর শান্তি নাই । মানুষেরা গরুর চামড়া দিয়ে জুতা তৈরি করে, ব্যাগ বানায় । আমার মতে, সেই গরুকে যে রাখাল বালক মাঠে তাড়িয়ে নিয়ে যায়, লাঠি দিয়ে বেদম পেটায়, অতি সহজেই নিয়ন্ত্রণ করেন ; সেই রাখালই হল মানুষের মধ্যে সবচেয়ে বিচক্ষণ ও বুদ্ধিমান । সুতরাং রাখালের উপর গবেষণা করলেই মানুষের থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে । এই কথা বলে নেপচুনের মহাবিজ্ঞানী ইকলু পিচু মহা আনন্দে হি হি হি করে হেসে উঠলেন । উপস্থিত অন্যান্য বিজ্ঞানী ও গণ্য মান্য ব্যক্তিগণ করতালির মাধ্যমে অভিবাদন ও তাদের সমর্থন ব্যক্ত করলেন ।

০২
প্রতিদিনের মতই হাওড়ে গরু নিয়ে যায় আলু । মোটামুটি বড় হাওড় । বেশ দূরে গ্রাম দেখা যায় । ভর দুপুর । আশেপাশে ধানের ক্ষেত । কয়েকজন কৃষক কাজ করছে । আলু গরু গুলোকে মাঠে ছেড়ে দেয় । প্রচুর ঘাস দেখে আলুর মন ভরে যায় । তারপর মাথার উপর ভাঙা ছাতাটি উড়িয়ে ঘাসের বিছানায় শুয়ে পড়ে । আর বুক থেকে বেরিয়ে আসে একটি তৃপ্তির নিঃশ্বাস । ঘাড় ঘুরিয়ে একবার গরু গুলোকে দেখে নেয় আলু । না, ঠিক আছে । এবার ঘুম পরীর কথা ভাবতে থাকে । প্রতিদিনই গরু ছেড়ে দিয়ে আলু নিদ্রার কোলে ঢলে পড়ে । আহা কি সুখের নিদ !

ইকুচু পিকু অনেকটা স্বাভাবিক । চোখের ব্যথাটা আগের মত আর নেই । আলু যে মাঠে গরু চরাচ্ছে ; সেই মাঠের ঠিক মাঝখানে ইকুচু দাঁড়িয়ে এদিক ওদিক তাকিয়ে দেখছে । মনে মনে বলল , সবই ঠিক আছে ! কোন সমস্যাই নেই । শিকার সামনে ঘুমাচ্ছে । এই সময় হেড অফিস থেকে ইকলু পিচুর কণ্ঠ ভেসে আসে --
ইকুচু পিচু শুনতে পাচ্ছ ?
জী বস, শুনতে পাচ্ছি ।
কোন সমস্যা আছে ?
জী না বস ।
শুন, বেশি দেরি করা যাবে না । আশেপাশে কিছু মানুষ আছে । দেরী হলে তারা টের পেয়ে যেতে পারে । আলু ঘুমাচ্ছে আমি দেখতে পাচ্ছি । তুমি আর দেরি না করে ঘুমন্ত অবস্থায়ই ওকে তুলে নিয়ে আস । সাবধান কেউ যেন বুঝতে না পারে !
ইকুচু পিকু বলল, জী বস !
সাথে সাথে ওপাশ থেকে শুনা গেল , ওকে ; ওভার !

ইকুচু পিকু আলুর মুখের দিকে একদৃষ্টে তাকিয়ে আছে । কী অদ্ভুত ! মাথায় ঘন কালো চুল । বড় বড় দুটি চোখ । কী সুন্দর ভ্রু ! আলুর নাকের ছিদ্র দিয়ে বেরিয়ে যাওয়া নিঃশ্বাসের শব্দ শুনা যাচ্ছে । আলুর মুখের মায়া আর হাওড়ের বিশালতা ও সবুজের সমারোহ ইকুচু পিকুর মনে গভীর ভাবে রেখাপাত করে । মুহূর্তের জন্য আনমনা হয়ে যায় ইকুচু ।
সাথে সাথে হেড অফিস থেকে ইকলু পিচুর কণ্ঠ শুনা যায়, বেশ রাগত স্বরে, ইকুচু দেরি করছ কেন ? তোমার সামান্য ভুলে সমস্ত পরিকল্পনাটা ভেস্তে যেতে পারে ! হারি আপ ! তাড়াতাড়ি কর , ওভার ।
ইকুচু পিকু আমতা আমতা করে কোন রকমে বলল, জী বস, ওভার !

০৩
চোখ খুলেই আলু গরু খুঁজতে লাগলো । কিন্তু কোথাও গরুর গ ও দেখতে পেল না । আলু বিস্ময়ে বিমুঢ় হয়ে গেল । গরু গুলো সব গেল কোথায় ? আসলে আলু জানেই না সে এখন কোথায় ! তার ঘুম ভেঙেছে নেপচুনের বিখ্যাত ল্যাবরেটরি কামাচু পাতিয়াগাতে । আলু শুধু এতটুকু বুঝতে পারল সে পরাণ পুরের মাঠে নেই । আলু কিছুটা চিন্তিত হল । মনে মনে ভাবতে লাগলো নিজের অবস্থান । কোন কূল কিনারা পেল না । তীব্র আলোর ঝলকানি । চারপাশে বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতির মেলা । ঘরের দরজা জানালা আছে বলে মনে হল না । আলু উঠে বসল । দু হাঁটুর মাঝখানে মাথা রেখে ভাবতে লাগলো কি ঘটেছে ? কিছুই মনে করতে পারল না ।

ইকুচু পিকুর সহকারী ইচুচু হন্ত দন্ত হয়ে ইকুচু পিকুর কাছে ছুটে গেল ।
কি ব্যাপার ইচুচু ?
বস, দারুণ ব্যাপার ! পৃথিবীর লোকটার ঘুম ভেঙ্গেছে ।
তাই নাকি !
জী বস !
চল, চল, তাড়াতাড়ি চল !

আপনা আপনি দরজা খুলে গেল । কোন শব্দ হয়নি । তারা দুজন সোজা আলুর সামনে দাঁড়াল । আলু তখনও মাথা নিচু করে আকাশ - পাতাল ভাবছে । কোন কথা না বলেই আলুকে তারা ধরে নিয়ে গেল নেপচুনের মহাবিজ্ঞানী ইকলু পিচুর কাছে । তিনি তখন আলুর ব্যাপারে করণীয় সম্পর্কে অন্যান্য বিজ্ঞানীদের সাথে মত বিনিময় করছেন । আলুকে দেখা মাত্র সবাই আচানক নীরব হয়ে গেলেন । মহাবিজ্ঞানী ইকলু পিচু ইশারায় আলুকে তার পাশে বসতে ইংগিত করলেন ।

আলু বসল না । তার কোন ভাবান্তর নেই । তবে এটুকু বুঝতে পারছে তাকে অপহরণ করা হয়েছে । এরা পৃথিবীর কোন মানুষ নয় । ভুত- প্রেত, দেও - দানো কিংবা জিন পরী জাতীয় কিছু একটা । তবে আলু মোটেই ভেঙে পড়েনি । ভেঙে পড়ার মত ছেলে সে নয় । শুধু তিনটি বিষয়ে সে কিছুটা চিন্তিত:
এক । মা
দুই । গরু
তিন । রাহেলা ( যার সাথে একটু একটু মন দেয়া নেয়া চলছে )

অকস্মাৎ মহাবিজ্ঞানী ইকলু পিচু নীরবতা ভেঙ্গে আলুর দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলেন -
আপনার নাম কি ?
জানি না --- আলু নির্ভীক কন্ঠে উত্তর দেয় ।
আমরা তো জানি আপনার নাম আলু । আপনি জানি না বলছেন কেন ? আপনার নামই কি জানি না ?
আলু আবার বলল, জানি না ।
মহাবিজ্ঞানী ধরে নিলেন, জানি না আলুর প্রকৃত নাম । নিক নেইম আলু ।
আচ্ছা আপনি কোথায় আছেন, সেটা কি আপনি জানেন ?
জানি না
আপনি বারবার আপনার নাম বলছেন কেন ?
আলু আবার বলল, জানিনা ।
গরু কিভাবে ডাকে ?
আলু উত্তরে বলল, জানি না ।
আচ্ছা আপনি কিভাবে গরুর মত বিচক্ষণ ও বুদ্ধিমান প্রাণীকে নিয়ন্ত্রণ করেন ?
জানি না ।
দয়া করে গরুর আচার আচরণ সম্পর্কে কিছু বলবেন কি ?
জানি না ।
মহাবিজ্ঞানী ইকলু কিছুমাত্র বিরক্ত না হয়ে আবার জিজ্ঞেস করলেন --- আচ্ছা আপনাদের মানুষদের এত উন্নতি ও সমৃদ্ধির রহস্য কি ?
জানি না ।
এবার মহাবিজ্ঞানী ইকলু ধীর স্থির অথচ কঠিন কণ্ঠে বললেন, উনাকে ল্যাবরেটরিতে নিয়ে যান । পৃথিবী থেকে একটি গরু তুলে নিয়ে আসুন । গরু এবং মিঃ জানি না উনাদের দু জনকেই গভীর ভাবে পর্যবেক্ষণ ও প্রয়োজনীয় পরীক্ষা নিরীক্ষা সম্পন্ন করে আমার কাছে রিপোর্ট উপস্থাপন করুন ।
জী বস, এই বলে আলুকে নিয়ে ইকুচু পিকু বেরিয়ে গেল ।

০৪

এদিকে একটি সংবাদ সারা পৃথিবী জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি করেছে । চীনা মহাকাশ সংস্থার বিজ্ঞানীদের রাডারে ধরা পড়েছে যে, বাংলাদেশ থেকে একটি ছেলেকে ভিনগ্রহের প্রাণীরা ধরে নিয়ে গেছে । তাদেরকে নেপচুনের দিকে যেতে দেখা গেছে । তারা সে ছবির ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেছে । ইলেকট্রনিক মিডিয়া, প্রিন্ট মিডিয়া সহ সকল গণ মাধ্যম বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্বের সংগে প্রচার করছে । সারা পৃথিবীর বিজ্ঞানীদের ঘুম হারাম । এ উপলক্ষে ঢাকায় আন্তঃমহাদেশীয় বিজ্ঞানীদের জরুরি সভা আহ্বান করা হয়েছে ।

আলুর মা ও রাহেলার চোখে ঘুম নেই । আলুকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না । তাহলে কি আলুকেই ! আলুর মা আর ভাবতে পারে না । দু চোখ বেঁয়ে জল গড়িয়ে পড়ে । হায় আলু ! বাপ মরা ছেলে আমার । রাহেলা আলুর মাকে নিয়ে বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা সংস্থার অফিসে যায় এবং ভিডিও ফুটেজ দেখে নিজের ছেলেকে শনাক্ত করে । বাংলাদেশ সরকার আলুর মায়ের দেখাশুনা ও নিরাপত্তার দায়িত্ব নিজ কাঁধে তুলে নেন । তাবৎ পৃথিবী থেকে সাংবাদিক ও বিজ্ঞানীরা আলুর মায়ের সাক্ষাৎকার নেয়ার জন্য ছুটে আসছেন । আলুর জীবন আচরণ সম্পর্কে জানতে চাইছেন । রাহেলাও সাংবাদিকদের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না ।

বিজ্ঞানীরা এই ঘটনার কারণ অনুসন্ধানের চেষ্টা করছেন । কিন্তু কোন কারণ বের করতে পারেননি । কেউ কেউ এই বলে চীনা বিজ্ঞানীদের দোষারূপ করছেন যে, তারা যেহেতু বিষয়টি জানতে পেরেছিলেন, তখন সাথে সাথেই ব্যবস্থা নেয়ার দরকার ছিল । অবশ্য চীনাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, আমরা জানতে পারলেও প্রয়োজনীয় প্রস্তুতির অভাবে সাথে সাথে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি ।

০৫

নেপচুনের কামাচু পাতিয়াগা সংলগ্ন হল রুমে আজ গুরুত্বপূর্ণ সম্মেলন । এই সম্মেলনে বিজ্ঞানী ইকুচু পিকু আলু এবং গরু সম্পর্কে তাঁর মহামূল্যবান রিপোর্ট উপস্থাপন করবেন । ইতিমধ্যে সমস্ত বিজ্ঞানী ও নেপচুনের বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিবর্গ সকলেই উপস্থিত হয়েছেন । ইকুচু পিকু সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে তাঁর বক্তব্য শুরু করলেনঃ

আমি আপনাদের প্রতি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ যে আমার মত একজন নগণ্য বিজ্ঞানীর উপর আপনারা এত বড় গুরু দায়িত্ব অর্পণ করেছেন । আমি মিঃ জানি না ওরফে আলু এবং গরুকে নিয়ে অত্যন্ত আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সহিত আমার গবেষণা সম্পন্ন করেছি । যার ফলাফল হলঃ
মিঃ জানি না ওরফে আলুঃ
লিঙ্গঃ পুরুষ
সেক্সP: QQQ3
IQ: 7800
ক্ষমতাঃ AAA+++
সততাঃ p1
দক্ষতাঃ NM2311

মিঃ গরুঃ
লিঙ্গঃ পুরুষ
সেক্সP: Q1
IQ: 240
ক্ষমতাঃ A
সততাঃ p1
দক্ষতাঃ NM231

উপস্থিত বিজ্ঞানীগণ, শুধু মাত্র সততা ইভেন্টে আলু এবং গরুর মধ্যে মিল পাওয়া গেছে । অন্যান্য ক্ষেত্রে মানুষ আমাদের তুলনায় অনেক অনেক বেশি বুদ্ধি ও ক্ষমতা সম্পন্ন । আমি মনে করি গরু সম্পর্কে আমাদের অতীতের ধারণা সম্পূর্ণরূপে ভুল । আমি আরও মনে করি মানুষই হল মহাবিশ্বের সবচেয়ে বিচক্ষণ, ক্ষমতাবান ও বুদ্ধিমান প্রাণী । মিঃ জানি না ওরফে আলুকে আজই পৃথিবীতে ফেরত পাঠানো উচিত । সকলকে ধন্যবাদ ।

উপস্থিত সকলেই করতালির মাধ্যমে এই বক্তব্যের সহিত ঐক্যমত পোষণ করলেন ।

০৬

আজ ঢাকায় আন্তঃমহাদেশীয় বিজ্ঞানীদের মহাসম্মেলন । এই সম্মেলনে নেপচুন অভিযানের খুঁটিনাটি বিষয় চূড়ান্ত হবে । যে করেই হোক আলুকে উদ্ধার করতে হবে । ভিনগ্রহবাসীদের অপতৎপরতার সমুচিত জবাব দিতে হবে । প্রয়োজনে নেপচুনসহ অন্যান্য গ্রহ দখল করতে হবে । মানুষের শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ তাদেরকে বুঝিয়ে দিতে হবে ।
সম্মেলন শুরু হয়ে গেছে । আলুর মা প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেছেন । রাহেলাকেও বিশেষ অতিথির মর্যাদা দেওয়া হয়েছে । জাপানের একজন বিশিষ্ট বিজ্ঞানী মূল্যবান বক্তৃতা রাখছেন । এমন সময় বাইরে শোরগোল শুনা গেল । কয়েকজন হন্ত দন্ত হয়ে সম্মেলন কক্ষে ঢুকে পড়লেন । তাদের কাছ থেকে জানা গেল, এইমাত্র আলুকে সম্মেলন কেন্দ্রের সামনে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে । সাথে রয়েছে একটি গরু । ভিনগ্রহ বাসীকে ধরা যায়নি, সে পালিয়ে গেছে ।

প্রধান অতিথির চেয়ার ছেড়ে আলুর মা দৌড়ে এসে ছেলেকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগলেন । রাহেলার চোখে মুখে মহাকাশ বিজয়ের হাসি ।

*****

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • জয়নুল আবেদীন
    জয়নুল আবেদীন বিচিত্র ভাবনার অপরূপ সুন্দর গল্প । অভিনন্দন রইলো ।
    প্রত্যুত্তর . ১৭ নভেম্বর, ২০১২
  • মোঃ আক্তারুজ্জামান
    মোঃ আক্তারুজ্জামান আপাকু পিথ্রীঃ গরু এবং একজন আলু- নাম কাম দুটোই যথার্থ সুন্দর হয়েছে। অনেক অনেক শুভ কামনা।
    প্রত্যুত্তর . ১৭ নভেম্বর, ২০১২
  • মোঃ সাইফুল্লাহ
    মোঃ সাইফুল্লাহ কল্পনার রাজ্যে ভেসে বেড়ানোর মত গল্প । খুবি মজা পেলাম ।
    প্রত্যুত্তর . ১৮ নভেম্বর, ২০১২
  • আহমেদ সাবের
    আহমেদ সাবের চমকপ্রদ বিজ্ঞাপনে ( গল্পের নামে) ক্রেতাদের (পাঠকদের) আকর্ষন করার চেষ্টা লক্ষণীয়। তবে, বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে যা হয় (রাবিশ মাল গছানো), এখানে তা হয়নি। বৈজ্ঞানিক কল্প-কাহিনীর মোড়কে একটা চমৎকার রম্য গল্প পেলাম। নেপচুন বাসীদের গরু এবং রাখাল সম্পর্কিত গবেষণায়, আমাদ...  আরও দেখুন
    প্রত্যুত্তর . ১৮ নভেম্বর, ২০১২
  • শাহ্‌জাহান কবীর
    শাহ্‌জাহান কবীর বেশ রসালো গল্প । অনেক আনন্দ পেলাম ।
    প্রত্যুত্তর . ২০ নভেম্বর, ২০১২
  • তানি হক
    তানি হক দারুন সুন্দর একটি গল্প পরলাম ..খুব ভালো লাগলো .. গল্পের মূল চরিত্রের নাম.. আলু .. হওয়াতে হাসি চাপিয়ে রাখা মুস্কিল হয়েছে ভাইয়া ...এমন সিরিয়াস বিপদে বেচারা আলু ..আর আমি হাসছি ..ভেবে খুবই খারাপ লাগছে .. যাইহোক সুন্দর গল্পটির জন্য ভাইয়াকে সুভেচ্ছা
    প্রত্যুত্তর . ২৪ নভেম্বর, ২০১২
  • রোজিনা রোজী
    রোজিনা রোজী কল্পনা তো ভালই করছেন ; সেই সাথে হাসির খেজুর রস ! ভাল লাগলো ।
    প্রত্যুত্তর . ২৬ নভেম্বর, ২০১২
  • জোনাকি
    জোনাকি দারুণ মজা পাইলাম ভাই !
    প্রত্যুত্তর . ২৭ নভেম্বর, ২০১২
  • এফ, আই , জুয়েল
    এফ, আই , জুয়েল # গভীর ভাবের সুন্দর অভিব্যক্তি ।
    প্রত্যুত্তর . ২৭ নভেম্বর, ২০১২
  • সূর্য
    সূর্য সুন্দর, বেশ সুন্দর কল্প আর রম্যের দ্বৈরথ। অনেক ভাল লাগলো
    প্রত্যুত্তর . ২৮ নভেম্বর, ২০১২