অলিক মানে অবাস্তব, অসাড়, মিথ্যে ।মানুষ স্বপ্ন নিয়েই বাঁচে ।অগণিত অলিক স্বপ্নে তার জীবনটাকে ভরিয়ে তোলে।কিছু পূরণ হয়, কিছু হয় না।জীবন সায়াহ্নে এসে মনে হয়, আসলে সবই অসাড়, মিথ্যে। তখন আক্ষেপ হয়, পারলৌকিক দৃষ্টিকোন থেকে জীবনটাকে আরো সুন্দর করে সাঁজাতে পারতাম।মৃত্যুদূত এসে গেলে এই আক্ষেপ আরো বেড়ে যায়। মানুষের জীবনের এই অগণিত স্বপ্নের অসাড়তাই বিষয়ের সাথে কবিতাটির সামঞ্জস্যতা প্রমাণ করে।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২ জানুয়ারী ১৯৮৩
গল্প/কবিতা: ১৮টি

সমন্বিত স্কোর

৫.০৭

বিচারক স্কোরঃ ৩.২৭ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৮ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - অলিক (অক্টোবর ২০১৮)

সুতো ছেঁড়া পলাতক ঘুড়ি
অলিক

সংখ্যা

মোট ভোট ২৪ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৫.০৭

মাইনুল ইসলাম আলিফ

comment ২০  favorite ১  import_contacts ২৬৯
আলোর খোলসে মোড়ানো যাযাবর সন্ধ্যায়,
চেয়ে দেখি জোছনার আবীর মাখা অগণিত পাখির ডানা।
ক্ষণিকের চৌকাঠে স্বপ্ন শালিক,
প্রজাপতি মেঘডানায় ঝাপটানো সুখের ঢেউ।
কিছু পূর্ণতার নীলে আর কিছু অপূর্ণতার মেঘে ছেয়ে যায় জীবন আকাশ।

জীবনের কবিতায় স্বপ্নের শব্দ বুনট,
ভাসমান শূন্যতায় নিয়তির অদৃশ্য হোঁচট।
তবুও স্বপ্নের পানশালায়, বিমুগ্ধ বিমোহিত তুলট প্রেমের
শরাবে ভিজিয়েছি ঠোঁট ।

সময়ের জমিনে দাঁড়িয়ে খামচে ধরি সভ্যতার পিঠ,
দেয়ালে দেয়ালে এঁকে যাই জাগতিক সুখের ছবি।
পাথর প্রাচীর ঘিরে ঘণ্টাধ্বনি, সাইরেন বাজে থেমে যাওয়া
সময়ের কাঁটায় কাঁটায় ।

হায়! আক্ষেপে আঁধার ,
সময়ের লেনদেনে হেরেছি বারবার।
অগোছালো জীবনের হলে সূর্য ডোবার সময় ,
ভাবতে বসেই চেয়ে দেখি অস্ফুট স্বরে কাঁদে ধূসর হৃদয়।

হায়াতের মৌঘরে নিজেকে খুজে ফিরি
দেখি সুতো ছেঁড়া পলাতক ঘুড়ি।
অন্তিম সময়ের পারদে অসাড় লাগে সব স্বপ্নডানা।
হায়! যদি ঈমানী খুশবো ছড়িয়ে, ভরিয়ে দিতাম সৌরভে
লৌকিকতার পাশ কাটিয়ে খোদার রাহে,
মৃত্যুর কাছে নিজেকে দিতাম সপে গৌরবে!

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement