লেখকের তথ্য

Photo
গল্প/কবিতা: ৫টি

সমন্বিত স্কোর

২.১৪

বিচারক স্কোরঃ ০ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.১৪ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftশীত (জানুয়ারী ২০১২)

“শীতকালে আর যাই হোক, গরম লাগেনা” মহামতি পুলক আহছান
শীত

সংখ্যা

মোট ভোট ৫৭ প্রাপ্ত পয়েন্ট ২.১৪

শাহরিয়ার হায়দার

comment ৫৯  favorite ২  import_contacts ৯৪৭
আর্ট কলেজের একটু সামনে এক কোনে চুপচাপ বসে ঠান্ডায় কাঁপছিলেন পুলক ভাই ।সইত্য (শৈত্য)মিথ্যা প্রবাহ কারে কয় হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছিলেন তিনি ।‘কোন হালায কয় গ্লোবাল ওয়ার্মিং,হারামজাদারে সামনে পাইলে ৩২টা থাপ্পড় দিয়া ১টা গালের দাত ফালাই দিতাম ।কিসের গ্লোবাল ওয়ার্মিং,শীতে জমে যাচ্ছি। এই ফাজিলের ফাজিল জুয়েল আসবে কতক্ষনে । ছি ছি ছি, কি বিশ্রী অবস্থা ।” রাত প্রায় পৌনে বারোটার দিকে পুলক ভাই জুয়েলের জন্য অপেক্ষা করছিলেন ।বসে বসে তিনি ভার্সিটি জীবনের শুরুর দিকের কথা ভাবছিলেন । ‘চিটাগাং ইউনিভার্সিটি সাইবেরিয়া থেকে শীত আমদানি করে’ রক্ত গরম ছিলো বলে এসব কথা কানের একপাশ দিয়ে ঢুকিয়ে অন্যপাশ দিয়ে বের করে দিতেন ।আহ কি চমৎকার ছিলো দিনগুলো ।মনে পড়ে গেল সেই সকালের কথা ।খুব ভোরে তিনি দোলা সারনী পার হয়ে সুইমিং পুলের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন।কুয়াশার মধ্যে এক হাত সামনের কোন জিনিষও দেখা যাচ্ছিল না।হঠাৎ বড় ভাইরূপি কতিপয় দুষ্কৃতিকারী সাক্ষাত আজরাইলরূপে হাজির ।
-কই যাস।
-ভাই হাঁটছিলাম।বহুদিনের অভ্যাস।
-গুড, ভেরি গুড।এবার থেকে আরেকটা অভ্যাস করবি।
-কি?
-সকাল সকাল সাঁতার কাটবি।
এরপর অনেকটা জোর করে তারা পুলক ভাইকে পানিতে ফেলেছিলো।তার আগে ………….(যা ঘটেছিলো তার জন্য লেখক দায়ী নহে)
দিগম্বর করিয়া তাহারা পুলক ভাইকে আধঘন্টা পানিতে চুবাইয়া ছিলেন।সেই শীতের সকালে সুইমিং পুলের ঠান্ডা পানিতে …………. আহ ।মনে পড়ে গেল ,হঠাৎ একজন প্যান্ট নিয়ে দৌড় দিয়ে পালিয়ে যাচ্ছিলো ।হায় মহামতি আইনস্টাইন বলেছিলেন ‘নগ্নতাই অশ্লীলতা নয়’ ।এসব কথা বই ম্যাগাজিনে পড়তেই ভালো লাগে , সরাসরি অভিজ্ঞতা অর্জনে নয় ।যাই হোক, রামের সুমতি থুক্কু বড় ভাইদের সুমতি হয়েছিলো ।পরে অবশ্য মউর দোয়ানে খিচুড়ি খাইয়েছিলো তারা ।’ অপেক্ষার সময় সহজে ফুরোয় না, এই থিওরিতে ঘড়ির কাটাও থেমে চলছিলো।শীতের মাত্রা যতই বাড়ছে ততই মনে হচ্ছে , আজ একটা ভালো কাজ করলাম ।“আমরা গাধা(গাধাকে গর্ধভ বলিয়া সন্মানিত করিবেন না, লইজ্জা লাগে)” নামে ফেইসবুকে একটা পেজ খুলেছিলেন।সেই গ্রুপের মেম্বার সংখ্যা মাশাল্লাহ ১৪২০জন । ইচ্ছা হল এবার সবাই মিলে শীতবস্ত্র বিতরন করবেন । যেই ভাবা সেই কাজ ।প্রথমে কাপড় সংগ্রহ এবং আজ সেই কাপড় বিতরন করলেন। মানে আমরা সবাই মিলে করলাম।ভাবতেই ভালো লাগছিলো উনার ।


জুয়েল হম্বিতম্বি করে এসেই জিজ্ঞেস করলো ‘ ভাই, আপনি ঠিক আসেন তো।’
-হ্যা, পুরোপুরি।মোবাইল নেভা।আর কাপড় দে’
-নেন ভাই।ভাই ওরা কি মাইর টাইর দিছিলো।
-চুপ কর। যা হইছে হইছে।এই ছিনতাইয়ের কথা আর কেউ যেন না জানে।ওই হারামজাদা তানভীর জানলে তোর খবর আছে।
- জানবে না। ভাই অনেকক্ষন শীতের মধ্যে খালি গায়ে দাড়িয়েছিলেন, ঠান্ডা লাগে নাই ।
-আরে , আর কইস না ।মনে আমাদের দেশের যাবতীয় কাউয়া সাইবেরিয়া চলে যাবে এবার।ওরা এইসব কাউয়ারে শীতের পাখি কইবো।
-তা তো হবেই।
-শোন,দুইদিন আগে গ্রামে গেছিলাম। গোসল করতে পানিতে নামতেই মনে হইলো, সব পানি ভিজে গেছে।
-ভাই চলেন। এই জায়গাটা তেমন একটা সুবিধার না।
দুই এক কদম এগোতেই পুলক ভাই দেখলেন আমি আর বাবলু লুকিয়ে উনাকে দেখছিলাম।
-জুয়েল, এই দুইটা এখানে কি করে ।
-ভাই ভয় পাচ্ছিলাম।
-ওই তোরা কি কিছু দেখছস।
-না ভাই, কিছু দেখি নাই।দেখলেও শার্ট পরা ছিলেন। শার্ট পরা না থাকলেও অন্ধকারে ছিলেন।
সবাই উচ্চস্বরে হাসতে শুরু করলাম।
-পুলক ভাই, মনে রাখবেন ‘ আইনস্টাইন বলেছেন “নগ্নতাই অশ্লীলতা নয়”। তাই আপনার এই ঘটনা কি আমরা ফাঁস করতে পারি।’
-এই কথা আইনস্টাইন কইছে, এই কথা তোরে কে কইলো।এই কথা আইনস্টাইন বলে নাই।
-ভাই বিশ্বাস না হয়,আমার দাদার মেজ ফুফার নানার ছোট শালার খালাতো ভাই মরহুম সলীমুল্লাহ সাহেবকে জিজ্ঞেস করেন।
-ফাজলামো করিস না। চল।



পাদটিকা : আসার পথে অনেক মানুষকে রাস্তায় ঘুমাতে দেখলাম।এই ঠান্ডায়………………………………… । আসুন শীতার্ত মানুষের পাশে দাড়াই।

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement