লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১ জুলাই ১৯৮৩
গল্প/কবিতা: ১৮টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

৪১

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftবর্ষা (আগস্ট ২০১১)

দিগন্তের শেষ প্লাবণ
বর্ষা

সংখ্যা

মোট ভোট ৪১

এ কে এম মাজহারুল আবেদিন

comment ২৯  favorite ৩  import_contacts ৭৩৬
উত্তাল শ্রাবন ঝড়ে ভেসে চলেছে দিগন্ত,
ভেসে চলেছে অপরাপর জীবন নৌকো |
উত্তরের শেষ সীমানা থেকে দক্ষিনে,
পূর্বের অশান্ত ঘনকালো রেখা থেকে পশ্চিমে,
শুধু দিগন্ত প্লাবিত ঝড়ের মাতম খেলা |

ভেসে যায় খাল বিল নদী,
ভেসে যায় গ্রামের মেঠো পথ,
ভেসে যায় শহর বন্দর,
ভেসে যায় বনের পশু পাখি,
আর ভেসে যায়,
রক্তে ভেজা মানুষের শরীর |

রক্তের প্লাবণ বয়ে চলে
শ্রাবণ মেঘের আসুরিক খেলার সাথে |
ভেসে যায় গনি মিয়ার গাভীন গোয়াল,
পেছনে পেছনে ভেসে আসে মনু মিয়ার ছিন্ন ভিন্ন শরীর,
পোয়াতি সালেহার নগ্ন মৃত দেহ |

দিগন্তের শেষ সীমানার দিকে ভেসে চলে
নিথর কালো শ্রাবণ মেঘ,
পৃথিবীকে ধুইয়ে দিয়ে তার সব কলঙ্ক থেকে |
তার সাথে ভেসে চলে, নধর গাই, মতি মিয়া, গনি মিয়া,
সালেহা, আরো নাম না জানা বহু গায়ের বধু, কৃষক,
রিক্সা চালক, স্কুল ছাত্র, বনের পশু, ঘর বাড়ি |

সবার শেষে,
দিগন্ত কাঁপিয়ে ভেসে আসে - শব্দ |
গুলির, বোমার, মর্টার শেল আরো আরো অনেক নাম না জানা
আত্মা কাঁপানো, মৃতের আর্তনাদ মুছে দেওয়া শব্দ |

শ্রাবনের কান্না মৃত দেহ দেখে থামে না,
থামে না কোনো শব্দেও |
শুধু বেড়ে চলে দিগন্তকে ভাসিয়ে দিয়ে,
একূল ওকূল চরাচর সব ভাসিয়ে দিয়ে,
মেঘের গর্জনে বোমার আওয়াজ ঢাকার বৃথা চেষ্টায়,
শেষের আশ্রয়ের পানে যেন |

প্রান্তরে পায় না কোনো ঘর,
সব ভেসে গেছে বাংলার রক্তে,
শ্রাবনের প্লাবিত কান্নায় মুছে গেছে হত্যার দাগ,
তবু মুছতে পারেনি রক্ত লাল ঘরের কপাট |
সে ব্যথায় কাতর শ্রাবণ কেদে চলেছে
জীবনের শেষ কান্না যেন |

ম্লান হতে হতে মিলে গেছে বাংলার পানির স্বচ্ছ রঙ,
মৃত রক্তের রঙ, মুছিয়ে দিয়েছে সকল স্বচ্ছতা,
গহণ বর্ষার জল, সেই ম্লানতা বাড়িয়ে দিয়েছে যেন |

শুধু থেমে নেই বজ্রের হুঙ্কার|
থেমে নেই আধার কালো করা মেঘের বর্ষণ |
তাদের সব কান্না, সব হুঙ্কার, বাংলার বাতাসে দিয়ে চলেছে কি এক নতুন বারতা যেন,
আকাশের মেঘের দোলায়, ঝরতে থাকা বৃষ্টির প্রতিটি ফোটায়,
বর্ষার ভেসে যাওয়া পানির স্রোতের ধারায়,
শুধু যেন একই বাণী, ফিস ফিস ফিস ফিস করে
বলে চলেছে বাংলার প্রকৃতির কানে কানে যেন |

"আসছে, সে আসছে,
সকল রক্তের ভেলায় চড়ে,
শ্রাবণ ঝড়ের তীব্র স্রোতে ভাসতে ভাসতে,
বাংলার মাঠ নদী ক্ষেত বিদীর্ণ করে,
আকাশের প্রতিটি মেঘের ফাঁক গলে,
প্রতিটি ঘরের রক্তের দাগ মাড়িয়ে,
প্রতিটি পোয়াতি মায়ের কোল ভরিয়ে,
সকল মুক্তি পাগল মানুষের শক্ত কাধে ভর দিয়ে,
সে আসছে |
বাংলার বর্ষায় ভেসে যাওয়া প্রতিটি ইঞ্চি মাটি কণা জুড়ে,
স্বাধীনতা আসছে |"

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement