অসীম জগত্‍ মাঝে
বিপুল তরঙ্গ-সাঁঝে
কথা কয় মানব-মানবী ।

জগতের খেয়া পাড়ে
বায়ু নড়ে , ফুল ঝরে
থেকে যায় শুধু নানা ছবি ।

আকাশে বাতাসে মিশে
নানা সুরে বীণা বাজে
সেই কলতানে অস্তরবি ।

কত সুরে সাধনায়
কত পথ-ঠিকানায়
ছন্দ বাঁধে মুগ্ধ হয়ে কবি ।

শিশুর ক্রন্দন ধ্বনি
বাতাসে যখনি হানি
শুরু হয় মা'র সাড়াদান ।

বিপুল রহস্য মাঝে
নানা দেশে, নানা কাজে
তা দেখে জুড়ায় আঁখি-প্রাণ ।

দূর- বলাকা-পাখায়
শেষের রবি লুকায়
তালবনে নেমে আসে সন্ধ্যা ।

আপন নীড়ের খুঁজে
বন-কোলাহল-মাঝে
বাতাসে দুলে রজনীগন্ধা ।

কত ছায়া, কত মায়া
মানবের কত কায়া
এক সুতায় হয়নি গাঁথা ।

তবু এক রক্ত লাল
সাগরে ভাসায়ে পাল
এক তীরে শেষ হয় কথা ।