লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১৪ জুলাই ১৯৬০
গল্প/কবিতা: ৩৫টি

সমন্বিত স্কোর

৪.৮৮

বিচারক স্কোরঃ ২.৮৭ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.০১ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftমুক্তিযোদ্ধা (ডিসেম্বর ২০১২)

স্রোতের টানে
মুক্তিযোদ্ধা

সংখ্যা

মোট ভোট ৫৭ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.৮৮

বশির আহমেদ

comment ৫৫  favorite ১  import_contacts ৯০৮
আগর তলার হাফানিয়া ক্যাম্প । ট্রেনিং শেষে কমান্ডার আবিদ রেজা নির্দেশ দিয়ে জয়দর মিয়ার মুখের দিকে তাকাল । কোন পরিবর্তন লক্ষ্য করল না ভেন্ডেজ বাধা অকেজো হাতটা সে নাড়াতে চাইল কিন্তু শিরশির করে একটা ব্যথা চিনচিন করে উঠল । মুখটা পান্ডুর মত হয়ে গেল । আবিদ প্রশ্ন করল কিরে পারবি না ? জয়দরের পান্ডুর মুখেও হাসি ফুটে উঠলো । ডান হাতে ষ্টেনগানটা উঠিয়ে নিয়ে আকাশের দিকে তাকাল । আকাশ স্বচ্চ নির্মল পরিষ্কার । মাঝে মাঝে একদল সাদা মেঘ দক্ষিণ থেকে উত্তর দিকে ছুটে যাচ্ছে । সবাই সারিবদ্ধ ভাবে লাইনে দাড়িয়ে আছে । তারা পঞ্চাশ জনের একটি দল আজ ট্রেনিং শেষ করে যুদ্ধের মাঠে যাবার জন্য প্রস্তুত । এক জন আর এক জনের মুখের দিকে তাকাল । আবিদ সবার চোখে মুখে এক কঠিন দীপ্ত ভাষা বুঝে মুচকি হাসল । দশজন দশজন করে পাচটি গ্রুপ করা হল । দশ জন বাছাই করা মৃত্যু ভয়হীন দূর্দান্ত সাহসীদের সমন্বয়ে গড়া অগ্রবর্তি গ্রুপের লিডার শফিক । তার সাথে জয়দর,সেতু , মতি, ফজল, আলফাজ, এনাম সহ আরও তিন জন । তারা প্রয়োজনীয় অস্ত্র গোলাবারুদ ডিনামাইড, গ্র্যানেড, এক্সক্লুসিভ নিয়ে জয়বাংলা বলে দেশের অভ্যন্তরে রওয়ানা হয়েছে । অপর গ্রুপ গুলো তাদের পেছন পেছন প্রয়োজনীয় সহায়তা সহ ব্যাকিং করে আসবে ।
শফিক ও তার দলকে নির্দেশ দেয় হয়েছে দেশে ঢুকেই সিএন্ডবি রোডের ব্রিজটি ভেঙ্গে দিতে হবে । যাতে নির্বিঘ্নে মুক্তি যোদ্ধারা দেশের অভ্যন্তরে ঢুকতে পারে । দেশে ঢুকেই তারা একটি গ্রামের গভীর জঙ্গলে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিল । শফিক, মতি, জয়দর, সেতু ছদ্ধবেশে, বেশ কবার ব্রিজটা রেকি করে এসেছে । সন্ধ্যা হতেই আকাশ ঘণ কাল হয়ে ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হল । বাইরে ঘণ গভীর অন্ধকার । মাঝে মাঝে বজ্রপাতসহ বিদ্যুত চমকাচ্ছে । শফিক, মতি, জয়দর আর সেতু নদীর জলের আড়ালে হারিয়ে গেল । অন্য ছয়জন নিরাপদ দুরত্ব বজায় রেখে তাদের অনুসরন করবে । নদীর তীব্র স্রোত তাদের টেনে নিয়ে চলছে । যতটা সময় লাগবে বলে ভেবে ছিল তার অনেক আগেই তারা ব্রিজের কাছাকাছি পৌছে গেল । সহজ সরল বোকা বকলম জয়দর আজ অনেক পরিনত সাহসী যোদ্ধা । শফিক ভাবল সেই জয়দর আর আজকের মুক্তিযোদ্ধা জয়দর যেন আকাশ পাতাল তফাৎ । একই গ্রামে একই সাথে তারা বড় হয়েছে । দারিদ্রতার কারনে জয়দরের স্কুলে যাওয়া হয়ে উঠেনি । কিন্তু শফিকদের মত লেখা পড়া জানা বন্ধুদের সে কোন দিন পিছু ছাড়েনি । বিকেলের আড্ডায়,ফুটবল খেলায় কিংবা তাস খেলায় জয়দর থাকতো সর্বত্র । যুদ্ধে যাবার খবর শুনে সেই সবার আগে দারিদ্র ক্লৃষ্ট বৃদ্ধ বাবা, মা, বিধবা বোন কে ফেলে তাদের সাথে যুদ্ধে চলে এসেছে । আগর তলায় আসার পথে পাক সেনাদের অতর্কিত আক্রমনে একটা গুলি এসে তার বাম হাতটি বিদ্ধ করে । তাৎক্ষনিক চিকিৎসার অভাবে হাতটি চিরতরে অকেজো হয়ে পড়ে । তবুও সে যুদ্ধের ময়দান থেকে পিছপা হয়নি । ট্রেনিংয়ের ময়দানে প্রথম প্রথম তার কথা আচরণে ও সরলতায় অনেক হাসি ঠাট্টা হতো ।
তাদের চোখের সামনে এখন ভাসছে ব্রীজটি । তারা জল থেকে আস্তে আস্তে উঠে পড়ল । ব্রীজের গোড়ায় যেতে হবে শফিক আর সেতু এগিয়ে গেল । সমস্ত পরিকল্পনা আগেই নেয়া আছে । উপরে ভারী বুটের আওয়াজ শুনা যাচ্ছে । পাক সেনারা টহল দিচ্ছে । জয়দর আর মতি শুয়ে পড়ল । শফিক আর সেতু ডিনামাইট ফিট করে ফেলেছে । দুরে সরে এসে ব্যাটারী অন করে সুইচ দিতে যাবে হঠাৎ সমস্ত রাস্তা জুড়ে আলো জ্বলে উঠল । বিদ্যুত গতিতে একটা শিসা শফিককে বিদ্ধ করল । সেতুর মরণ চিৎকার কানে এল । উপর থেকে হ্যান্ডস আপ বলে শব্দ শুনতে পেয়ে জয়দর ষ্টেনটা উপরে তুলে দাড়িয়ে পড়ল । চারিদিক থেকে পাকসেনারা তাকে ও মতিকে ঘিরে আছে । ভাঙ্গা হাতটা নাড়াতে চাইলো কিন্তু পারল না । হ্যাচকা টানে এক সেনা তার হাত থেকে ষ্টেনটা কেড়ে নিয়ে একটা ঘুষি মেরে তাকে মাটিতে ফেলে দিল । চারদিক থেকে বুটের লাথি পড়তে লাগল । রাইফেলের বাটের আঘাতে মাথা ফেটে গিয়ে রক্তে ভেসে যাচ্ছে । কিছুক্ষণের মধ্যে জয়দর জ্ঞান হারিয়ে ফেলল ।

জ্ঞান ফিরে এলে দেখতে পেল সে পাকহায়েনাদের একটি জীপের মাঝে একা পড়ে আছে । প্রচন্ড গোলাগুলির শব্দ কানে আসছে । সে মাথা তুলে দেখতে চেষ্টা করল । অন্ধকারে কিছুই দেখতে পেল না । সে হাতরাতে শুরু করল । একটা বাক্স হাতে ঠেকল । বাক্সের ভেতর হাতরে বেশ কিছু হ্যান্ড গ্রেনেড ও গুলি খুঁজে পেল । জয়দর একটু মুচকি হাসল । আস্তে আস্তে উঠে বসল দুটো গ্রেনেড হাতে তুলে নিল । বাইরে তাকাল দেখলো জীপটি ব্রীজের মাঝ বরাবর দাড় করানো । জয়দর চরম সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে । এক টানে দুটো গ্রেনেডের পিন খুলে ফেলল । গ্রেনেড দুটো জীপের মাঝে ফেলে দিয়ে জীপ থেকে এক লাফে রেলিং ডিংগিয়ে নদীতে পড়ার আগেই প্রচন্ড জোরে গ্রেনেড গুলো ব্রাষ্ট করল । জীপটি প্রায় বিশফিট উপরে উঠে জ্বলে উঠলো । জ্বলতে জ্বলতে আবার ব্রীজের উপর আছড়ে পড়ল । পাক সেনারা কিছু বুঝে উঠার আগেই অনেকে নদীর জলে তলিয়ে গেল আর বাকীরা ভাঙ্গা ব্রীজের দুই পাড়ে আটকা পড়ল ।
স্রোতের টানে জয়দর ভেসে চলছে । সে দেখছে ছোট্র সুন্দর গাঁ, সামনে পেছনে ফসলের মাঠ । জমিতে হাল দিচ্ছে । গরুর পেছন পেছন লাঙ্গলের হাতল ধরে আছে । বন্ধুরা সামনের বড় সড়ক দিয়ে বইখাতা নিয়ে স্কুলে যাচ্ছে । গাছে গাছে শিমুল পলাশ, কৃষ্ণচুড়া ফুটে সারা গা লালে লাল হয়ে উঠেছে । দুর থেকে একটা ট্রেন হুইসেল বাজাতে বাজাতে এগিয়ে আসছে । দলবেধে মাছ ধরতে খালে নেমে পড়েছে । বিকাল হয়ে আসছে লাঙল জোয়াল কাধে নিয়ে গরু তারিয়ে বাড়ীর পানে দে ছুট । কোন রকমে নাকে মুখে দুটো খাবার মুখে তুলে রেলওয়ে মাঠে ছুটছে । জহির বলটা আমার কাছে দে । জোরে এক লাথি লাগিয়েছে । চারিদিক থেকে শোরগুল গৌল গৌল । দারিদ্র ক্লিষ্ট বৃদ্ধ বাবা মা বিধবা বোনের আর্তি- ভাই তুই কবে ফিরবি । আমাদের যে বড় ক্ষিধা । ঘরে যে আর কিছুই নেই । বোনরে আর কটা দিন সবুর কর দেশটা স্বাধীন হলেই আমি চলে আসবো । তখন দেখবি আমাদের আর কোন অভাব থাকবে না । জানিস আমি নিজ হাতে পাক সেনাদের খতম করেছি । সিএন্ডবি ব্রীজটা উড়িয়ে দিয়েছি । এখন আমাদের অগ্রযাত্রা আর কেউ আটকাতে পারবে না । জয়দর ক্লান্ত বেশ ক্লান্ত । ঘুম পেয়েছে বড্ড ঘুম পেয়েছে । এক সময় গভীর ঘুমে তলিয়ে গেল ।
পর দিন সকালে চানপুরের চরে একটা ক্ষতবিক্ষত লাশ ভেসে উঠেছে । লাশটির পরিচয় কেউ বলতে পারল না । তাই বেওয়ারীশ লাশ ভেবে নদীর পাড়েই তার কবর দিল । তিন দিন পর মুক্তি যোদ্ধারা এ পথে ঢাকার দিকে এগিয়ে আসছে । তারা গ্রামের মানুষের মুখে শুনতে পেল এখানে গত পরশু এক অজ্ঞাত লোকের ক্ষতবিক্ষত লাশ ভেসে উঠে ছিল । মুক্তি যোদ্ধারা কবর দেয়া স্থানটি দেখতে গিয়ে জয়দরের ব্যবহৃত পোষাক দেখে তাকে চিনতে পারল । স্থানটি জয়দরদের গ্রাম থেকে মাত্র তিন কিলোমিটার দুরে তাদেরই থানায় । কিন্তু কেউ তাকে চিনতে পারল না । মুক্তিযোদ্ধারা গ্রামের কয়েক জনকে ডেকে নিয়ে তার রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া পড়ে কবরটি লাল সবুজ পতাকা দিয়ে ঢেকে দিল । মুক্তি বাহিনী জয়দরের রক্তের শপথ নিয়ে যুদ্ধের ময়দানে ছড়িয়ে পড়ল ।
জয়দর ,শফিক, সেতু, মতিদের সেই বীরত্বের কথা আজ আর কেউ ভুলেও মনে করে না । তাদের অনেক সহযোদ্ধা আজ মুক্তিযোদ্ধাসনদ, পদপদবী, নেতা নেত্রীর পদলেহন আর সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলায় ব্যস্ত ।

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement