কবিতার বিষয় নির্বাচন করা হয়েছে 'বাংলাদেশ' ।এই কবিতাটি আমার দেশের রূপময়তা, দেশের মাতৃরূপি সন্তানের নানা দান ও এর রূপে নাগরিকরূপি সন্তানদের বিমুগ্ধতা এবং নানান পর্যটকগনও যে মুগ্ধ তার বর্ণনা রয়েছে। বাংলাদেশের হেমন্ত ও বসন্ত কালের ফুলের সৌন্দর্য্য, নদ-নদী ইত্যাদির বর্ণনা রয়েছে।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ৪ জুলাই ১৯৯৭
গল্প/কবিতা: ৪টি

সমন্বিত স্কোর

২.৮৯

বিচারক স্কোরঃ ১.৪৫ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৪৪ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - বাংলাদেশ (ডিসেম্বর ২০১৯)

স্বদেশ জননী
বাংলাদেশ

সংখ্যা

মোট ভোট ১২ প্রাপ্ত পয়েন্ট ২.৮৯

Hasan ibn Nazrul

comment ১৭  favorite ২  import_contacts ৫০৮
আমি জীবনানন্দের চোখে দেখেছি আমার স্বদেশকে,
দেখেছি তার রূপময়তা আর স্নিগ্ধা সকল বেশ।
দেখেছি মাগো, তোমার দীর্ঘ অঞ্চলের লালিত্য মাখা ভালবাসা; আর দেখেছি তোমার নবনব রূপের লাবণ্যতা।

বাদলের ধারায় মুছে দাও তুমি সকল ক্লেদ-ক্লান্তি; আর বিমুগ্ধ কর কদমের সুগন্ধি সৌরভে।
মাগো, তোমার শাড়ির নকশা হেরেছ যে এ জীবনে; ভুলিবে কি সে আর এ জনমে?
হেমন্তি-বাসন্তি ফুলে নাও তুমি নবনব রূপ;
তোমার রূপের গুণ-গান গাহিল তাই ফাহিয়েন বতুতা প্রমুখ।

স্রোতস্বিনী রূপ দুগ্ধ তুমি ছড়ায়ে রেখেছ সকল গাঁয়,
সকল বাচা- ধনেরা মা তাই বেঁচে রয়।
তোমার রূপ আমি আজ কি করিব বর্ণন? শ্রেষ্ঠা তুমি;_
হতে সকল জন। তাই মিনতি তোমা দ্বারে,
রেখো গো মা এ বাছারে আগলে_ চিরকাল; তোমার আঁচলে।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement