তুমি বিনা আজ লেখা কারুকাজ হয়তো হয়েছে শেষ-
তোমাকে নিয়ে কবিতার খাতায় স্মৃতির পাতায় লিখেছি কাব্য বেশ।

তোমার কূলে ভিড়াতে গিয়ে আমার ডিঙ্গি নাও-
খেয়ালের ভুলে মাস্ত্তলে ওঠে ভুলে ছিলাম আপন গাঁও।

তীরে তরী তার ফিরবে না আর এমনই যখন সুর-
মিছে কেন আর মায়া খানি তার ভুলে যাও বহুদুর।

যদিও স্বপন ছিল রঙ্গিন সাজে নৌকার মাঝে সময় করিব পার-
দু:খ শুধুই আকুল মিনতি ছলনাতে তাকে চেনা ভার।

মহীয়সী মহাজ্ঞানী মহতী রুপের জালে-
ধরেছিলে মন, ভেঙ্গেছ এখন, নিজের আপন খেয়ালে।

অসম প্রেমের মালাতে গলায় পড়ে গেছে যেন ফাঁস-
সুখ বিনা ধরনীতে ,নাই আজ বাঁচিবার আশ।

খেয়ালের ভুলে কালের স্রোতে তুমি আজ বহু দুরে-
কোন লালসে ছেড়ে গেলে প্রশ্ন তোমার তরে ।

জীবনের মধুক্ষণ দিবেই যদি কিছুক্ষণ কেনইবা এলে-
হৃদ মাঝে রেখে ছবি, আজ আমি ব্যর্থ কবি-এইকি চেয়েছিলে?

সুখী হবে হও সুখী কষ্ট নেই তাতে-
প্রতারনা করোনা আর কারো সাথে।

গায়ের ছেলে গেয়ো ভাবো ভাবতে পারো তুমি-
কত ভালবাসতাম তোমায় ,তুমি জানো না ,জানে অর্ন্তজামি।

চাকচিক্ক আর কৃত্তিমতায় তোমার শহর গড়া-
অহমিকার ছত্রছায়ায়, হয়তো সুখী -আমার সঙ্গ ছাড়া।

মিষ্টি হাসি সোহাগ বদন বিশেষ গন্ধের কেশ-
যত দিন থাকবো বেঁচে থাকবে তাহার রেশ।

গায়ের রংটা তোমার সাদা হয়তো আমার কালো-
রুপ না দেখে মনটা দেখো কাহার ছিল ভালো।

হাসি গান আর আড্ডা ছিল তোমার অনেক প্রিয়-
বাস্তবতায় কষ্ট এলে সেটাও মেনে নিয়ো।

গোলাপ তোমার প্রিয় ছিল ,প্রিয় রং কালো-
সেই তালিকায় আমার নামটি শুধুই মিথ্যে ছিল।

শুভ্র মুকুল ,প্রিয় বকুল ,হাসনা হেনার ঘ্রাণ-
পূর্ণিমার চাঁদ মেঘে ঢাকা আজ, সব আনন্দই ম্লান।

সন্ধে বেলার মধুর স্মৃতি মনের মাঝে আঁকা-
ফিরবে না আর দিন গুলো তার ,স্মৃতির আড়ালে ঢাকা।

বাস্তবতার কঠিন চাবুকে পিষ্ঠ আমার গা-
হৃদয়ের ক্ষত সদা জাগ্রত উপহার দিয়েছ যা।

কান্নায় আঁখি জল, ছিল আগে টলমল,শুকিয়েছে আজ-
হৃদয় জুড়ে রক্তক্ষরণ, মন পিপাসু আকুতি মরণ, কবে আসিবে সাঁজ।

কত রাত নির্ঘুম কাটিয়েছি একা ,সকলি তোমার দান-
হৃদয় পটে তোমার স্মৃতি চির অম্লান।