ভয় পাওয়া অনুভবের অগোছালো কথামালা...
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১২ সেপ্টেম্বর ১৯৭৯
গল্প/কবিতা: ৪টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - ভয় (ডিসেম্বর ২০১৮)

তোমার সাথেই যত কথা, ও নদী!
ভয়

সংখ্যা

নাহিদ জাকী

comment ৪  favorite ০  import_contacts ৩৬
ও নদী যদি থামতে এখানে খানিক ক্ষণ,
উচাটন মনে রাখতে জল শীতল হাত!
হৃদয়ের তাঁতে নিরবধি মসলিন ক্ষরণ,
আলোর মিছিল নিয়ে গ্রেফতার প্রভাত।

ঘুম জাগানিয়া অত্যুজ্জ্বল ভোরই ত চাই,
অথচ সুরের সব কইতর ভয়ে চুপ বারান্দায়।
কী করে বুঝাই, কী নির্জন বোঝা বয়ে যাই;
বেহতর আবেগ সবেগে ভুল জলে সাঁতরায়।

দেখো পাঁজরে খরার হাজার উপাত্ত;
গোধূলি বাতাসে মিশে কার দীর্ঘশ্বাস!
সুরম্য জীবনে একা মানব - এ সত্য।
জলের চঞ্চলতায় ডুবসাঁতারে হাঁস।

শিউলির বুকে শরৎ যদিও চমকায়,
ছাচিপানের ঘ্রাণেতে জোড়া পায়রা লাল;
ডর লাগেগো! মাঠের কুয়াশা ধমকায়,
দিনান্তে দিগন্ত হতে ফিরেনি রাখাল।

অনুর্বর জলস্রোতে ভাসা বিবর্ণ ঘরে
অভিমানি সভ্যতার কতখানি দাবি?
বাউলা মন ঘুরে মরা পিরিতের চরে;
হারায়েছে বধূ কবে বোধের নাকচাবি।

জ্বরের ঘোরে যৌবনও বুঝি বনে বনে;
দোটানার ভাঙচুরে অন্তর হাকালুকি।
ভয় পাওয়া বোধ উষ্ণতার সন্ধানে;
ঘুলঘুলির রোদে আন্ধা কবুতর পাখি।

তোমার সাথেই যত কথা, ও নদী!
ভয়ের বাতাসে মুছে গেছে পদচিহ্ন।
দাওয়ায় বসে গল্প কও পলিগন্ধী,
ফসলি হাওয়ায় আনো ফের নবান্ন!

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement