প্রতিনিয়ত কোন না কোন ভাবে-ই আমরা পাপ করে যাচ্ছি। হোক ছোট কিংবা বড়। হোক ছবিরা কিংবা কবিরা গুনাহ। আর যখন আমরা ভাবি- "প্রত্যেক প্রাণীকে একদিন মৃত্যৃর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে" (যা পবিত্র কুরআনে তিনবার বলা আছে। সুরা আল ইমরান-১৮৫, সুরা আম্বিয়া- ৩৫ এবং সুরা আনকাবূত- ৫৭)। অতঃপর আমরা দ্বিধাগ্রস্থ হয়ে পড়ি। পাপ মোছনের জন্য জন্য বিভিন্নভাবে ইনুনি- বিনুনি করি। আর এই জন্য নিশ্চয় আল্লাহ্‌র কাছে ক্ষমার জন্য প্রার্থনা করি। যদিও আমরা মোনাজাতের সুরা কেরাত জানিনা, কিন্তু আমরা যে ভাষায় আল্লাহর কাছে চাই না কেন, তিনি সব ভাষা বুঝেন এবং আমাদের আশ্বাস- তিনি আমাদেরকে ক্ষমা করবেন। আর যদি ক্ষমা না করেন, তাহলে নিশ্চয় আমাদের পরকালের বসবাস হবে জাহান্নাম। এই জাহান্নামের ভয়ে আমরা প্রতিনিয়ত আল্লাহর কাছে প্রার্থনা চাই। আল্লাহ যেন আমাদেরকে ক্ষমা করেন- আমিন। - "জাহান্নামের ভয়" আমার এ কবিতাটি যদি এভাবে ভাবি, তাহলে "ভয়" বিষয়ের সাথে সম্পূর্ণ সামঞ্জস্য পাবে বলে মনে করি।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১২ মার্চ ১৯৯৭
গল্প/কবিতা: ৪০টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - ভয় (ডিসেম্বর ২০১৮)

ভয়
ভয়

সংখ্যা

মোঃ নুরেআলম সিদ্দিকী

comment ৭  favorite ০  import_contacts ১৬২
হঠাৎ করে থমকে উঠি, হঠাৎ করে কেঁদে উঠে মন
হঠাৎ করে দু'হাত তুলি, কি বলবো পাইনা খুঁজে বিবরণ!
চেনা মাঠ, চেনা আকাশ, চেনা এই আলোর দূরগামী পথ
কিছু সমীকরণ বদ্ধকূপে, কিছু চোখের সীমানায়
কিছু আবার জমে নির্জলা আগুনে, উত্তাল সাগরের মতোন।
রুমালে গুঁজি কাঁদা জল, মাপজোখ নেই পাপের সীমানা
মিথ্যের অজুহাত ত্বকের ভাঁজে। সন্তপ্ত হৃদয়ের কান্না।
একটু হাটি, একটু ফিরি, আচমকায় চমকে উঠি
আতর গোলাপ জলের সুবাস এখনো তো যায়নি;
শরীর কেঁপে উঠে, বুকের ভিতরটা কামড় দেয়
কেবলি বয়স বাড়ে, তবুও ফলাফলের পাল্লা শূন্যতা!

ধ্বসে পড়ে কত স্বপ্ন, কত প্রশান্তির বিছানা
একমুঠো হাসি লুকাই নিন্দুকের নিন্দায়,
নিদারুণ খেলা করে পৌরাণিক ইচ্ছেরা
তবুও ক্লান্ত হয়ে তাকিয়ে থাকি তোমার দরোজায়!
আকাশ দেখি, পাহাড় দেখি সাগর নদীও কম না
বিষাদের রক্তচাপ গড়িয়ে পড়ে নিত্য,
ক্রমাগত ব্যথা জমাট বাঁধে রক্তিম আভায়
রঙ্গমঞ্চের পুতুল নাচে নষ্টামিরা নৌকা ভিড়াই!
সব অপবাদ বুকে চেপে, অভিশাপের প্রায়শ্চিত্ত ঢেকে
তবুও এই একলা পারাণি তোমার কাছে হাত তুলি
বয়ে চলা অশ্রুত বর্ণমালায় ভিজাই দুই আঁখি!

প্রভু! যদি না তুমি সেদিন কিছু বলো,
যদি না দেয়াল বন্দীরত পাপের সব বোজা সবাইকে দেখিয়ে দাও!
তখন আমি এই নষ্টামির ক্যাশম্যামোগুলো কোথায় লুকাবো?
তাইতো পাপ মোচনের জন্য প্রতিনিয়ত তোমার কাছে হাত তুলি।।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • নাজমুল হুসাইন
    নাজমুল হুসাইন প্রভু! যদি না তুমি সেদিন কিছু বলো,
    যদি না দেয়াল বন্দীরত পাপের সব বোজা সবাইকে দেখিয়ে দাও!
    তখন আমি এই নষ্টামির ক্যাশম্যামোগুলো কোথায় লুকাবো?
    তাইতো পাপ মোচনের জন্য প্রতিনিয়ত তোমার কাছে হাত তুলি।।এই পংতিমালা পরোকালের কথা মনে করিয়ে দিল।বরাবরের মতই শুভকামনা রইলো।
    প্রত্যুত্তর . thumb_up . ১ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • মোঃ মোখলেছুর  রহমান
    মোঃ মোখলেছুর রহমান ভোট তো বন্ধ, শুধু ভাল লাগা রইল।
    প্রত্যুত্তর . thumb_up . ২ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • আবু আরিছ
    আবু আরিছ প্রথম দুই লাইনে তিন বার হঠাৎ লিখেছেন, যা অতিরঞ্জন, যা খুশি লিখেছেন, শব্দকে এত সস্তা করা ঠিক। Words have weight.
    প্রত্যুত্তর . ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮
    • মোঃ নুরেআলম সিদ্দিকী আপনি তো ১ম দুই লাইনের অর্থ-ই বুঝলেন না, সস্তা মনে করলেন কিভাবে.....?? মন দিয়ে আবারো পড়ার অনুরোধ রইল।। অতঃপর পাবেন, আমরা যখন ভুলক্রমে হোক আর জেনে শুনে হোক পাপ করি ফেলি পরপরই বুকটা কেঁপে উঠে। এরপর পাপ মোচনের জন্য মনের ভিতর বিভিন্নভাবে ইনুনি বিনুনি করে। আর সাথে সাথেই যদি আমরা দুহাত তুলি, তাহলে কিভাবে আমরা ক্ষমা চাইবো সেই দোয়া কেরাত আমরা কয়জনে আর জানি- যার কারণে বলা হয়েছে, কি বলবো পাইনা খুঁজে বিবরণ। তবুও আমরা যা পারি, তা দিয়ে ক্ষমা চেয়ে নিই। কারণ সৃষ্টিকর্তা সব ভাষা বুঝেন। আশা করি ভালোভাবে না পড়ে, লেখার গভীরতা না বুঝে ফালতু মন্তব্য করে কাউকে ছোট মনে করবেন না। বাজার সস্তা হতে পারে, লেখকের মনের ভাব, লেখা কখনো সস্তা হতে পারে না।
      প্রত্যুত্তর . thumb_up . ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • আবু আরিছ
    আবু আরিছ আপনিতো ভাই চটে গেছেন দেখি, সমালোচনাও কিন্তু সাহিত্য! শব্দের শব্দ সাজিয়েছেন, কবিতার যে মূল হারমনি তা কিন্তু আমাদের শূন্য ময়দানে দাড় করিয়ে দিছে...
    প্রত্যুত্তর . ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮
    • মোঃ নুরেআলম সিদ্দিকী সাহিত্য সমালোচনা সম্পর্কে আগে বেশি বেশি জানুন, শিখুন তারপর সমালোচনা করুন। যেটা সাহিত্য সমালোচনা সেটা আমি রাগ হই না, মানা করি না। এমন কি কিছু বলিও না। আমি সমালোচনাকে ভালোবাসি। আরেকটি কথা না বললেই নয়, আমার পাতার মত এই ওয়েবসাইটে কারো পাতায় এত সমালোচনা আসেনি। এই সমালোচনা মেনে নিতে পেরেছি বলে আজ এ পর্যন্ত এসেছি। পারলে সাহিত্য সমালোচনা করুন, ফালতু কিছু বলে কাউকে ছোট করবেন না আশা করি। ধন্যবাদ আবারো।।
      প্রত্যুত্তর . ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮
  •  মাইনুল ইসলাম  আলিফ
    মাইনুল ইসলাম আলিফ নুরে আলম ভাই কবিতা অসাধারণ সুন্দর হয়েছে।কেউ কেউ আছেন না বুঝেই মন্তব্য করেন।না বুঝে মন্তব্য করা আর সমালোচনা এক জিনিস নয়। আমার কবিতায় ও একই অবস্থা।একবার গিয়ে দেখবেন প্লিজ।
    প্রত্যুত্তর . thumb_up . ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • আবীর রায়হান
    আবীর রায়হান চমৎকার লিখেছেন। ভাল থাকবেন ভাই
    প্রত্যুত্তর . thumb_up . ৪ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • রণতূর্য ২
    রণতূর্য ২ ভালো লাগল কবিতা টা। আমার পাতায় আমন্ত্রন রইল।সময় পেলে ঘুরে আসবেন :)
    প্রত্যুত্তর . ৯ মার্চ

advertisement