মানুষের জীবনের সকল বাস্তবতার কিছু পরম সত্যের পেছনেও লুকিয়ে থাকে,মিথ্যা/অলিক চিত্র ও চরিত্র।অতল জলরাশির বুকে পাহাড় সম ঢেউ যখন,দুরন্ত মাঝির বুকে মৃদু কম্পন তুলে দেয়,তখন সাধের স্বপ্নও তার চোখে কেবল অলিক হয়েই ভেসে ওঠে।এভাবে জীবনের নানা টানা পোড়ান শেষে,যখন মানুষ শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করে পরপারে পাড়ি জমায়,চোখে মুখে যন্ত্রনার ছাপ ফুটে ওঠে,তখন জীবন তো তার কাছে অলিকই মনে হবার কথা।যেমন দুঃসহ স্বপ্নে কাটানো রাতের শেষে,চেতনা ফিরে পাওয়া তনু বলে ভয় পেয়েছি,অথচ সারা রাতের স্বপ্ন! অলিক নাটকের মঞচায়ন ঘটিয়েছে সারা রাত।সুতরাং বাস্তবতার পেছনে প্রচ্ছন্নভাবে অলিকেরাই বসবাস করে।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১২ অক্টোবর ১৯৯২
গল্প/কবিতা: ১৭টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - অলিক (অক্টোবর ২০১৮)

অলিক স্বপ্নের জাল।
অলিক

সংখ্যা

নাজমুল হসেন

comment ৮  favorite ০  import_contacts ৮৪
শত স্বপ্ন,সাধনার ডিঙিয়ে চলা ঢেউ,অতল জলরাশির বুকে,
ক্ষনিকের পুলক মেটা পিয়াস মাত্র।
আলতা রাঙা আলেয়ার রোমাঞ্চকর ক্ষত,
জীবন মোড়ানো পুতুল খেলার ছল।
ল্যাংটা কালের লাজ-সরম,
দাগ কেটে যায় দাগী আসামির মত।
মরে যাওয়া প্রাণে ছলনার অবসান,
মাতাল জটাধারীর,ভন্ডামীর বস্ত্রাহরণে,স্বাদের মজা লুকানো।
মোহ মায়ায় আচ্ছন্ন চেতনার নিদ্রায়,
মিথ্যা বন্দিদশার পাজরে,ঠুকে দেয়া পেরেক সম গর্ত।
আসমান-পাতাল একাকার মহাশকট যেন,
উড়ে চলার পতঙ্গ ডানা।
ভয়,ত্রাস,কম্পনের অদৃশ্যমান সিগন্যালের স্লোগান,
জর্জরিত অলিক আঘাতে ঘায়েল বিলাসী বাসনা।
নরাধমের কাঙাল রুপের,বিজলীর ফেড়ে ফেলা মেঘের কান্না,
চৈত্রের জ্বালানো চিতায়,অনলের ঘসাঘসির প্রেম তূল্য।
মরণ পরিক্ষায়,পরাজয় পত্রে,লিখে দেয়া অবশেষ নিঃস্বাস,
জীবন,জগৎ,প্রলাপ,প্রলয়,সনাতন,শব্দের্,নিরর্থক ধাঁধা।
প্রতিটা রাতের শেষে,ফিরে আসা আত্নার,অলসতার হাইতোলা,
জানান দিয়ে যায়,গত হওয়া কাল ছিল,অলিক স্বপ্নের জাল বোনা।



advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement