লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২২ অক্টোবর ১৯৯৪
গল্প/কবিতা: ১৬টি

প্রাপ্ত পয়েন্ট

১৩

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - কোমলতা (এপ্রিল ২০১৮)

রক্ত অভিষেক
কোমলতা

সংখ্যা

মোট ভোট ১৩

অবাক হাওয়া prosenjit

comment ৯  favorite ০  import_contacts ৮২৯
পৃথিবীর বুকে যেথায় হয়েছিল এক ভিন্ন ইতিহাস,
রক্ত দিয়ে করেছিল রক্ষা মায়ের ভাষার বিশ্বাস সেথায় ছিল কোটি বাঙালির প্রিয় নিবাস ৷
ঘুমন্ত বাঙালি যদি একবার জেগে উঠে তবে পারে না তারে কোন বাধা রুদ্ধ করিতে,
তাহা ছিল যেন তাহার ই এক ঝলক,মায়ের ভাষার দাবি প্রতিষ্ঠায় সকল বাধাই হয়েছিল সেদিন অমূলক ৷

ছাত্র—জনতা জেগেছিল সেদিন নব জাগরণে,নব শিহরণে,
ভয়হীন পথে মায়ের ভাষার দাবি বুকে নিয়ে বাড়িয়েছিল পা রণে ৷
করিতে মায়ের ভাষার দাবি প্রতিষ্ঠিত ,
শাসকের শত চোখ রাঙ্গানি ও পারেনি করিতে অকুতভয় বীর যুবকদের ক্লান্ত ,
সাহসের বলে বলিয়ান হয়ে শাসকের শত বাধা ,শত ভয় অনায়াসে করিয়াছে লঙ্গিত ৷

যেথায় পেয়েছে বাধা সেথায় হয়েছে বেগবান নতুন উদ্যমে,
শাসকের শত হুঁশিয়ারিও পারে নি রুদ্ধ করিতে তাদের পথে ,
মৃত্যুকে হাতে নিয়ে মায়ের ভাষা বুকে নিয়ে বিশ্বকে দেখিয়েছে বীর শুধু তারাই পারে নিজের জীবন নিয়ে খেলা করিতে ৷
ভয়কে জয় করে অনায়াসে হয়েছে আগুয়ান, মায়ের ভাষার মর্যাদা আনয়নে অকাতরে দিয়েছে নিজেরে বলিদান ৷

করিতে মায়ের ভাষার ঋণ শোধ , বাঙালি হারায়নি বোধ,
হয়নি পিছু পা বীর বাঙালি যুবকের দল,
বাড়িয়েছিল পা, মিলিয়েছিল কাধে—কাধ,প্লেকার্ড হাতে দিয়েছিল স্লোগান অনর্গল ৷
পাষন্ড শাসকের বন্দুকের গুলি চলছিল নিরস্ত্র ছাত্র—জনতা বরাবর,
গুলিতে লুটিয়ে পড়েছিল বীর পর—পর,
তবুও মুখে ছিল ক্ষিণ স্লোগান সাথে ছিল বিজয়ের হাসি, যেন তা বলছিল বিশ্ব তুই চেয়ে দেখ ,
আজ বীরের প্রতি ফোঁটা রক্তে শত বছরের পরধীনতার শিকল ভাঙ্গার হচ্ছে রক্ত অভিষেক ৷

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement