লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১৯ নভেম্বর ১৯৮৯
গল্প/কবিতা: ১৪টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftমা (জুন ২০১৪)

মা'র জন্য
মা

সংখ্যা

ধ্রুব সরকার

comment ১  favorite ০  import_contacts ২৭১
কেন জানি জীবনের এই সময়টায় মাকে খুব মনে পড়ছে।প্রতিটি দিনের অনেকটা সময় কাটে কেবল মাকে ভেবে তাঁর সাথে অতীত হয়ে যাওয়া মুহূর্তগুলো নিয়ে।
খুব দেখতে ইচ্ছে করছে মাকে।অনেকদিন দেখিনা,তাঁর সাথে কথা বলিনা।মা আমার মাথায় হাত বুলায়না, আমার সেই ভাল লাগা খাবারগুলো তৈরী করে খাওয়ায়না।আমার সামান্য কষ্টের খবরে যার বুক ভাঙ্গা চিৎকার শোনা যেত এখন আর সে চেয়েও দেখেনা কষ্টের নিচে চাপা পড়ে থাকা তাঁর ছেলেটাকে।এতো অভিমান কেন মা তোমার ? খুব বেশি অন্যায় করে ফেলেছি না? ব্যর্থতায় পর্যবশিত আমার বর্তমান জীবনের জন্য তোমার অভাবটাকেই আমি দায়ী করি মা। এতো অনাদর,অবহেলা আমি ভাল নেই মা।মা, তুমি কি পারনা সব অভিমান থেকে নিজেকে মুক্ত করে আমার কাছে আসতে।তোমার স্নেহতলে শান্ত হব, ভাল মানুষ হয়ে গড়ে উঠবো।
মা সেই কথাগুলো কি তোমার মনে আছে? আমি যখন ক্লাশ টু’তে পড়তাম।ঢিল মেরে একটা মা শালিকের পাখা ভেঙ্গে দিয়েছিলাম,সেদিন খুব জোরে একটা চড় মেরেছিলে আমার গালে। আমি অনেক্ষণ কেঁদেছিলাম ব্যাথা পেয়েছিলাম বলে কিন্তু তুমি কেন কেঁদেছিলে তথন তা বুঝিনি।এখন বুঝি কিন্তু তুমি আর এখন কাঁদনা।আমি একাই কাঁদি - গভীর রাতে কিংবা কেবল বেঁচে থাকার জন্যই কষ্টে।সেদিন তুমি আমায় বুঝিয়েছিলে মা পাখিটার উপরই কেবল বাচ্চা দুটো নির্ভশীল।মায়ের যত্ন আর যোগানো আহার ছাড়া বাচ্চাগুলোর সুস্থতা বা বেঁচে থাকা সম্ভব নয়।মা আমি সত্যিই আজ খুব অসুস্থ তোমাকে ছাড়া।আমার সুস্থতার জন্য একবার তুমি তোমার জীবন উৎসর্গ করেছিলে।তোমার ত্যাগে ফিরে পাওয়া জীবনে তোমার চাওয়ার পূর্নতা মেলাতে পারিনি বাড়িয়েছি কেবল পাপ।এক বারও আমি প্রর্থনা করিনি আমার জীবন ত্যাগে তোমার সতেজতা।মা বিশ্বাস কর আমি তখন বুঝিনি এসব।মা’হীন অজস্র সন্তানের চেয়ে মাতৃস্নেহে একটি সন্তান অনেক বেশি সজ্জিত।মা পাখির ডানা ভেঙ্গে যাওয়ায় তোমার খুব দুশ্চিন্তা হত ওর বাচ্চা দুটোকে নিয়ে।মা আমিতো সেই তৃতীয় শ্রেণী হতে তুমি হারা, আমার জন্য তোমার চিন্তা হয়না ? কখনো কি ভাবনা হয়না তুমি ছাড়া কেমন আছে তোমার খোকা।অসুখ হলে এখন আর কেউ তোমার মত রাত ভর পাশে জেগে থাকেনা।তখন খুব কষ্ট লাগে আর অভাব অনুভব হয় তোমার।মা ক্ষমা করে দিও আমাকে। আমাকে নিয়ে তোমার স্বপ্নের প্রতিফলন ঘটেনি বলে।মা স্রষ্ঠা তোমাকে খুব ভালবাশে বলেই না তোমাকে নিয়ে গেছে তাঁর কাছে।তুমি স্রষ্ঠাকে একটু বল তিনি যেন আমার জীবনটাকে বদলিয়ে দেয়।একটা সুন্দর স্বাভাবিক জীবন চাই যা মাতৃস্নেহে গড়ে ওঠা সুস্থ সুন্দর জীবনের মত। মা তুমি ভাল থেক।আবারও লিখবো..........

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement