লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২৬ জুলাই ১৯৮৩
গল্প/কবিতা: ২৯টি

সমন্বিত স্কোর

৪.২৩

বিচারক স্কোরঃ ২.১ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.১৩ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftদেশপ্রেম (ডিসেম্বর ২০১৩)

ত্যানাকাহিনী
দেশপ্রেম

সংখ্যা

মোট ভোট ৩৯ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.২৩

রনীল

comment ১৮  favorite ১  import_contacts ১,১১৩
ছড় ছড়, ছড় ছড়, ছড় ছড়… ছড়াৎ ছরাৎ, ছড়াৎ ছরাৎ, ছড়াৎ ছরাৎ, ছড়াৎ ছরাৎ ... বালতি উপচে পড়ে যাচ্ছে পানি। ইদানীং পানির বড় কষ্ট, মা খালারা যখন তখন এঁটো থালাবাসনের ডাঁই সামনে জমিয়ে রেখে কপাল চাপড়ান।
বাড়ীওয়ালা লোকটা কিন্তু খারাপনা, বরং প্রানে বেশ দয়ামায়া আছে। তবে চাইলেও লোকটা কিছু করতে পারছেনা। লোকটারই বা কি দোষ। দেশের তাবৎ মন্ত্রী মিনিস্টার আর নগর পিতারা মিলে যেখানে ফেল মেরেছেন, সেখানে একে বকাঝকা করে কি ফায়দা!
প্রতি ফোঁটা পানি এখানে মহামুল্যবান। আমি কম্পিউটারে টাইমারটা বন্ধ করে উঠে দাড়াই।
- কই যাচ্ছিসরে জব্বার?
আমি কাচুমচু হয়ে বড়ভাইটার মুখের দিকে তাকাই। বড়ভাইটা একটু জ্ঞানী প্রকৃতির, পত্রিকায় সিরিয়াস ধরণের সব ফিচার লেখে, সেমিনারে বক্তৃতা- ফক্ত্রিতা ও দেয়। আজকাল আবার টিভির লেট নাইট টক শোগুলোতে ও কথা বলা শুরু করেছে।
টিভিতে কথা বলেন- ভালো কথা। দেশের উপকার, পরিবারের ও সুনাম। সমস্যা হচ্ছে রাত বিরাতে কাঁচা ঘুম থেকে উঠে গেট খোলার কাজটা যে আমাকেই করতে হচ্ছে।
যা হোক, বড়ভাইকে একটু ভয় ই পাই। মাথায় কত জ্ঞান বিজ্ঞান ঘিচঘিচ করছে। কথায় বলেনা- অজ্ঞানের (!) চাবুকের চেয়ে জ্ঞানী লোকের কথার মারে ব্যথা বেশি।
এমন জ্ঞানী বড়ভাইয়ের সামনে কথাবার্তা সাবধানে বলাই ভালো। আমি কাচুমচু হয়ে বিনয়ের কারনে একপ্রকার ঝুঁকে পড়েই জবাব দেই।
- ইয়ে! পানি পড়ে যাচ্ছে যে দাদা!
- হুম! পানি পড়ে যাচ্ছে, সে এক ভীষণ সমস্যাই বটে! এভাবে যদি ঢাকা সিটিতে প্রতি ফ্যামিলি ডেইলি দুই বালতি করে পানি ওয়েস্ট করে তাহলে মান্থলি ওয়েস্টেজের পরিমাণটা কত হবে ভেবেছিস? আচ্ছা যা, ডেইলি বেসিসেই হিসেবটা কর।
জীবনে কখনো অঙ্কে চল্লিশের উপর পাইনি। জ্বর হলে সবসময় ঘোরের মাঝে শুধু বানরই দেখেছি। বুড়ো-ডাগর, নারী-পুরুষ, ভদ্র-অসভ্য ধরণের অসংখ্য বানর। তাদের হাতে তেল মাখানো অজস্র কচি বাঁশ।
স্পারটান যোদ্ধার মত হাতে বাঁশ নিয়ে ওরা সবাই তেড়ে আসছে।
আমার প্রতি হয়তো ওদের সহানুভূতিই ছিল। তবে জ্বরের ঘোরে আমার সবসময় মনে হত অতগুলো বাঁশের আগা ওরা বোধহয় আমার কথা ভেবেই ছুঁচলো করে চেঁছে নিয়েছিল।
বড়ভাই ও বোধহয় আমার বাঁশ তথা অঙ্কভীতির কথা জানেন। ছোটকালে একারনে হালকা মারধরও করেছেন, তবে এখন এ ব্যাপারে আমার প্রতি তার একটা সহানুভুতির ভাব আছে- এ আমি বেশ বুঝতে পারি।
- আচ্ছা যা, টেপটা বন্ধ করে আয়। কিন্তু এখানে টেপ বন্ধ করে ফায়দা কি? মূল জায়গাতেই যে আমাদের ফুটো হয়ে গেছে, সব পানিতো সে ফুটো দিয়ে দেদারছে বের হয়ে যাচ্ছে- সেটা বন্ধ করবি কিভাবে?
আমি এবার পুরোপুরিই বিভ্রান্ত হয়ে গেলাম। মূল জায়গা! মানে মেইন লাইন ফেটে গেল নাকি আবার! কই! কোন শোরগোল তো শুনতে পেলামনা। উৎসুক হয়ে বারান্দা দিয়ে উঁকি মারতে যেতেই বড়ভাই হা হা করে উঠলেন।
- আহারে, পোলাটা আর চালাক চতুর হইলিনা! মূল জায়গা বলতে আমি নিচের মেইন লাইন বুঝাই নাই, অন্য কিছু বুঝাইছি। তোরা তো পড়াশোনা কিছু করছনা, জ্ঞানের কোন চর্চা নেই। তুই এক কাজ কর- ঢাকা শহরে এই পানির সংকটের উপর একটা রিপোর্ট লিখে ফেল, সুযোগ পেলে আমি পত্রিকায় ছাপায়ে দিবো।

এইরে সেরেছে, রিপোর্ট লিখতে হবে! তাতে নিশ্চয়ই পানি অপচয়ের হিসেব সংক্রান্ত যত অংক কষতে হবে! নরমাল ক্যালকুলেটরে তো আঁটবেনা, সায়েন্টিফিকটা এখন কই পাই!
- ইয়ে দাদা, রিপোর্টটা এখনই লিখবো? নাকি পানিটা বন্ধ করে তারপর ...
- আরে গাধা, আগে পানি বন্ধ কর, তারপর লিখতে বস!
তড়িঘড়ি করে বাথরুমে ঢুকে দেখি পানি পড়া এমনিতেই থেমে গেছে। যাবেইতো, বাড়ীওয়ালা একবার পানি ছাড়লে সবাই যেভাবে হামলে পড়ে!

আম্মা গেছেন নিউমার্কেটে। যাবার আগে বারবার বলে গিয়েছিলেন যাতে পানি আসলে নীল ড্রামটা ভরিয়ে রাখি।
পানির অভাবে গত তিন চারদিন ধরে ঘর মোছা- কাপর ধোয়া হচ্ছেনা। রান্নাঘরের জানালার গ্রিলে আম্মার ঘর মোছার ত্যানাটা শুটকি মাছের মত লটকে আছে। আজকে আম্মা ঘরে ফিরলে কি হাউকাউটা হবে- সেটা ভেবেই আমার অল্পস্বল্প ঘাম হতে লাগলো।
আম্মার বকাঝকার ভয়েই কিনা, মাথাটা একটু ঘুরে গেল। ঝিমঝিম অনুভূতির মধ্যে যেন উল্টাপাল্টা দেখা শুরু করলাম।
বাথরুমে পানি পড়া বন্ধ হয়ে গেছে, বহুক্ষণ হল। তবু ছড়াৎ ছড়াৎ শব্দটা যেন শুনতে পাচ্ছি যেন। বাথরুমে আবার ঢুকে দেখি- নাহ! ট্যাপ থেকে তো পানি পড়ছেনা!
বাথরুম হতে বের হতেই মনে হল সবকিছু দুলছে, ভুমিকম্প হচ্ছে নাকি বাবা!
রান্নাঘরে ডাই করা বাসনগুলো কাঁপছে ঝনঝন। তার উপর লটকে থাকা ত্যানাটাও দুলছে অল্পস্বল্প।
আমি হাত বাড়িয়ে বাথরুমের দেয়ালটা ধরে নিজেকে কোনমতে সামলাতেই দেখলাম রান্নাঘরে ত্যানাটার বিভাজন হল, অনেকটা এমিবার মত করেই ...
ক্রমশ একটা ত্যানা থেকে দুটো, দুটো থেকে চারটে তারপর অসংখ্য অজস্র ত্যানায় ভরে যেতে লাগলো আমার চারপাশ।
বড়ভাইটার কোনদিকে হুশ নেই। নিবিষ্টমনে সে দিস্তা কাগজে কি যেন লিখে যাচ্ছে, পছন্দসই না হলে ছুড়ে ফেলছে ওয়েস্ট বাস্কেটে।
সেদিকে তাকিয়ে দেখি বড় ভাইয়ের ফেলে দেয়া দোমড়ানো কাগজগুলোও পরিনত হয়েছে ত্যানায়। অতঃপর প্যাঁচানো ত্যানাগুলো আবার বিভাজন শুরু করলো। একটা থেকে দুটো, দুই থেকে চার... আমি দুহাতে চোখ ঢেকে ফেললাম, বড়ভাই বোধহয় কিছু বলতে যাচ্ছিলেন। সেদিকে ভ্রূক্ষেপ না করে ঝড়ের গতিতে বের হয়ে এলাম ঘর থেকে।
গতকাল রাতে রতনদের সাথে চিপায় গিয়ে সাল্টুতে টান দিয়েছিলাম, একটু মনে হয় বেশীই খাওয়া হয়ে গিয়েছিল। নাহ! এসব ছাইপাঁশ খাওয়া ছাড়তে হবে। রতনগুলার সাথেও আর মেশা যাবেনা।
কাজকাম না থাকলে এমনই হয়। বড়ভাইরে ধরে একটা কোথাও ঢুকে যেতে হবে। এমন জ্ঞানী বড়ভাই আমার, কোথাও না কোথাও একটা সিস্টেম ঠিকই করে ফেলবেন ...

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • মনতোষ চন্দ্র দাশ
    মনতোষ চন্দ্র দাশ ছোট পরিসরে লেখা গল্প কিন্তু দারুন উপভোগ্য।মনে হয় সবাই'র বুঝি এরকম বড় ভাই থাকেন।যাদের অংক মার্কা প্রশ্নে ভীতির সঞ্চার হয়।অনেক..অনেক..শুভেচ্ছা।
    প্রত্যুত্তর . ৬ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • মোঃ মহিউদ্দীন সান্‌তু
    মোঃ মহিউদ্দীন সান্‌তু ভালো লাগলো গল্প টি, অনেক শুভেছা রইল।
    প্রত্যুত্তর . ৮ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • মাহমুদুল হাসান ফেরদৌস
    মাহমুদুল হাসান ফেরদৌস ত্যানা কাহিনী রুপক হিসেবে ভালোই লাগল।
    প্রত্যুত্তর . ১০ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • হাবিব রহমান
    হাবিব রহমান আমার অবস্থা দেখি জব্বরের মতই, বড় ভাই গল্পে কি বুঝাইতে চাইল বুঝতে পারলাম না। কেমন যেন ত্যানা প্যাচইয়া গেল।
    প্রত্যুত্তর . ১১ ডিসেম্বর, ২০১৩
    • রনীল হাবিব ভাই, আমার অবস্থাও আপ্নের আর জব্বারের মত। বড় ভাই যে আসলে গল্পে কি বুঝাইতে চাইছে- বুঝতে পারিনাই। তয় এতটুকু বুঝছি বড় ভাইয়ের ত্যানা প্যাঁচানো শুনতে শুনতে পানি সব ওভার ফ্লো হয়ে পড়ে গেছে, অতএব নেক্সট দুই দিন আবার নো ঘর মুছামুছি...
      প্রত্যুত্তর . ১২ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • নিলাঞ্জনা নীল
    নিলাঞ্জনা নীল আমাদের দেশে জ্ঞানী বুদ্ধিজিবী আর ত্যানা প্যাঁচানো লো্কের অভাব নাই... ভাল লিখেছেন হাফ মিতা !
    প্রত্যুত্তর . ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • এফ, আই , জুয়েল
    এফ, আই , জুয়েল # অনেক সুন্দর ভাবনার বেশ গতিময় ও ঝরছরে একটি লেখা ।।
    প্রত্যুত্তর . ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • Kala Manik
    Kala Manik এমন জ্ঞানী বড় ভাই থাকতে ত্যানা পেচাচ্ছেন কেন ? যে কোন একটা সিস্টেমে ঢুকে পড়ুন আখের আপনার ক্লিয়ার------। তবে লেখক যে গল্প লেখায় সিদ্ধ হস্ত তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না । সামান্য জলপড়া পাতা নড়া নিয়ে যিনি এমন গল্প ফাদতে পারেন তিনি যে কি ----------।
    প্রত্যুত্তর . ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • সূর্য
    সূর্য আমি একটা কথা প্রায়শই বলে থাকি, "আমরা পড়ালেখা শিখছি অথচ শিক্ষিত হচ্ছি না"। আর এর চরম ফল দাড়াচ্ছে সঠিক কাজ এবং সময়জ্ঞানের সম্পর্ক তৈরি করতে পারছি না। এর ফলেই অতি জ্ঞানী বড় ভাইরা কাজের সময় ত্যানা পেচাচ্ছেন। সবচেয়ে মজার ব্যাপারটাও তুমি তুলে এনেছো এখ...  আরও দেখুন
    প্রত্যুত্তর . ২০ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • দীপঙ্কর বেরা
    দীপঙ্কর বেরা খুব ভাল লাগল । পড় লাম পুরো গল্প ।
    প্রত্যুত্তর . ২৫ ডিসেম্বর, ২০১৩
  • আশা
    আশা জ্ঞানী বুদ্ধিজিবী আর ত্যানা প্যাঁচানো লো্কের অভাব নাই। অথচ জাতির দুর্দিনে এই ত্যানা প্যাঁচানো লোকদের প্যাচাপেচি বন্ধ করে আসল জায়গায় যাওয়া উচিৎ। অবশ্য বর্তমানে দেশে সবদিকেই বিপদ। তাই ত্যানা পেচিয়ে কোনো মতে নিজের উপস্থিতিটা জানান দিচ্ছে। আর রনীল ভাই: আপ...  আরও দেখুন
    প্রত্যুত্তর . ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৩

advertisement