সেদিন রাত্রি ছিল হয়তো অমাবস্যার
আলো ছিলোনা চারিদিকে অন্ধকার
বুকের মধ্যে হু-হু শব্দ চাঁপা ব্যাথা
আত্মবোধের বিস্ফোরিত কিছু কথা..

দ্যাখো রাত কীকরে হয় এতোটা প্রসার
অভিকর্ষের ঘনঘটায় ছিল সেই ছাদঘর
মনের সঞ্চিত বেদনাকে শক্তিতে রূপান্তর
পর্বত- নদী তুফান যতো পাড়ি দিতে অন্তর

রাত পোহালেই একুশ তারিখ হবে হয়তো
অগত্যা নিজে স্বান্তনাটুকু অলসতা নয়তো
চাঙ্গা হই উপদ্রপহীন কতো জ্বলন্ত চিন্তায়
চোখের কোনের অশ্রুকে আগুন বলা যায়

জন্ম যে ভাষার মাঝে সে ভাষাই কেন শত্রু
তবে আবার ওরাই বলে এদেশের নাকি মিত্র
মায়ের শেখানো বুলি কেন কেড়ে নিতে চায়
অভিকর্ষের বর্বরতা মানবতাকে হার মানায়

ধৈর্য ধরেছি অনেক জুলুম এবার আর নয়..
বিশ্ববাসী জেনে যাবে কাল বাঙ্গালীর পরিচয়
খুব সকালে বেরিয়ে ছিলাম মাকে সালাম করে
আমরা কজন মিছিল নিয়ে ওই রাজপথ ধরে.