চলে গেছেন মিতা নূর এই ক্লেদাক্ত পৃথিবী ছেড়ে ভিন্ন কোন জগতে। ভিন্ন সে জগতে তার মঙ্গল হোক, কামনা করি। কখনো প্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন না, কিন্তু প্রতিটি মৃত্যুই বেদনার জন্ম দেয়... তবে তারও চেয়ে বেদনাদায়ক বাংলাদেশের কিছু কিছু মিডিয়ার কর্মকাণ্ড। প্রতিটা ব্যাপারে তারা ঝামেলা পাকাতে কেন চায়?

আজকের নিউজের ক্রমবিকাশ দেখুনঃ

- নিউজ একঃ "চরম অভিমান নিয়ে চলে গেলে গেলেন মিতা নূর"
- নিউজ দুইঃ "মারা গেছেন অভিনেত্রী মিতা নূর; বাসা থেকে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার"
- নিউজ তিনঃ "দাম্পত্য কলহের কারনেই অভিনেত্রী মিতা নূরের আত্মহত্যা"
- নিউজ চারঃ "এর আগেও আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন মিতা নূর"
- নিউজ পাঁচঃ "হত্যা না আত্মহত্যা ?"
- নিউজ ছয়ঃ "স্বামীর অত্যাচার-নির্যাতনেই মিতা নূরের মৃত্যু!"


গেস করেন, এইবারে কি লিখবে তারা!!?? সম্ভাবনা আছে, এই সব নিউজ মডিফায়েড হয়ে অবশেষে বিনা প্রমানেই তারা ছেপে দেবে নিজেদের চিন্তাধারাঃ "নিজের পরকীয়ার (!) কারণে স্বামীর অত্যাচারে (!) মৃত্যু হল তার"...

 শুধু মিতাণূর নন, বিভিন্ন সেলিব্রেটি থেকে সাধারণ মানুষ- সবাই এই জাতীয় ক্রাইমের শিকার হন। কে কার আগে লোভনীয় নিউজ দেবে এই প্রতিযোগিতায় নেমে অনেকেই নিজেদের নোংরা মানসিকতা প্রকট ভাবে তুলে ধরে। ভিকটিমের আশেপাশের মানুষ তখন শোক সামলাবেন, নাকি এই সব অযাচিত নোংরামি সামলাবেন?!

 
শুরুর নিউজ গুলো মোটামুটি ঠিকঠাক থাকে, তখন সম্মান দিয়েই লেখে। তারপর শুরু হয় বিশ্লেষণ-ব্যবচ্ছেদ-মিথ্যাচার-গুজব!! প্রচার বাড়ানোর কৌশল! আরে বাবা, কেউ মারা গেলেই তার স্বামী/স্ত্রী তাঁকে খুন করেছে বা অত্যাচার করেছে ভাবার যুক্তি কি? অথাবা মৃত মানুষটি বা তাঁর সঙ্গীর পরকীয়া ছিল এমনটাই কেন ভাবতে হবে? যে মারা যায় বা যার সঙ্গী মারা যায় তাকেদেরই কেন বিনা প্রমাণে, না জেনে চরিত্রহীন অভিযোগ দেয়া হয়?? অভিযোগ সত্য হলে প্রামাণসহ লিখুন,অযথা প্রমাণ ছাড়া আঙুল তুলতে হবে কেন??

ছোট বেলায় একটা গল্প শুনেছিলাম আম্মুর মুখে,

এক বন্ধু সুন্দরবন থেকে বেড়িয়ে এসে দাবী করলো সে বাঘ দেখেছে।
ভ্রমণকারীঃ বন্ধু, আমি সুন্দরবনে ১০০ বাঘ দেখেছি!
অপর বন্ধুঃ গুল!! হতেই পারে না!
ভ্রমণকারীঃ তাহলে ৫০ তো হবেই!
অপর বন্ধুঃ ভুয়া!
ভ্রমণকারীঃ তাহলে ২৫!
অপর বন্ধুঃ ধুর!ধুর!
ভ্রমণকারীঃ যাইহোক, একটা বাঘ তো দেখছি মাস্ট!
অপর বন্ধুঃ হুহ!অসম্ভব!!!
ভ্রমণকারীঃ অসম্ভব??? তাহলে তুইই বল,জঙ্গলে গোলপাতা নড়ল কেন??!!

যারা বস্তুনিষ্ঠ 'সাংবাদিক' , তাদের স্যালুট! আর যারা গোলপাতা নড়তে দেখেই বাঘ দেখার গল্প ফেঁদে বসেন, তারা সাঙ্ঘাতিক... তাদের জন্য ঘৃণা!!

আর যারা 'সাংঘাতিক', তারা প্লিজ আগে sure হন, পরে লিখুন। নিজের বা অন্য কারো ভাবনা কিম্বা সন্দেহ গুবলেট পাকিয়ে নিউজ লেখা শুরু করবেন না। আপনি সাংবাদিক, কল্পকাহিনী লেখক নন।। দয়া করে কোন পরিবারের মৃত, বিশেষ করে সদ্য মৃত কাউকে নিয়ে কেচ্ছা শুরু করবেন না। কেউ ভিকটিম হলে, পারলে সাহায্য করুন; অযথা পরিবারটির শোক বাড়িয়ে দেবেন না।।


যেটুকু নিশ্চিত সত্য, যেটুকু ভব্যতার সীমায় পড়ে- সেটুকুই লিখুন। নিতান্তই নিজের/অন্যের মন্তব্য যদি জুড়তে চান, সেটা উল্লেখ করুন। কেউ ধারণা/ অভিযোগ করলে সেটাকে শিরোনাম বানিয়ে দিয়ে, ভেতরে ছোট্ট করে উল্লেখ করলেন, 'অমুক বলেছেন' বা 'ধারণা করা হচ্ছে'... এটা ঘোর অন্যায়!! অনেকেই কিন্তু শুধুমাত্র শিরোনামটাই পড়বে।


আমি শ্রদ্ধা করি তাদের, যারা সাংবাদিকতা নিয়ম মেনে, সৎ ভাবে করেন।।


আর অসাধু,অসৎ সাঙ্ঘাতিকগণ, আপনাদেরও পরিবার আছে বলে আমরা বিশ্বাস করি, বিশ্বাস করতে চাই। সুতরাং, সাংবাদিকতায় এটিকেট মেনে চলুন, নিয়ম মেনে চলুন। সাধারণ মানুষ তাহলে আপনাদের ভালবাসবে।।