বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১২ সেপ্টেম্বর ১৯৯৬
গল্প/কবিতা: ৭টি

মনখারাপের দিনলিপিরা

প্রশ্ন ডিসেম্বর ২০১৭

রূপকথার জন্য মেঘবালিকা

আঁধার অক্টোবর ২০১৭

ভূত-বিভ্রাট

ভৌতিক সেপ্টেম্বর ২০১৭

কবিতা - ভয় (সেপ্টেম্বর ২০১৭)

ঘুম নেই

বিনায়ক চক্রবর্তী
comment ৭  favorite ০  import_contacts ২০৪
একটিও দাঁত অক্ষত নেই। চুলগুলিও পেকে
অনিদ্রাতে ধরলো দ্যাখো নন্দ চাটুজ্জেকে।
মশারি গুঁজে চোখটি বুজে যেই না শুয়েছেন
তেনাদের হয় নেত্য শুরু, তোলপাড় সবখেন!
খটখটিয়ে হাঁটতে থাকে বন্ধ ঘরের মাঝে!
তোমরা বলো, এসব সয়ে ঘুমিয়ে পড়া সাজে?

ভূতের ভয়ে নন্দখুড়োর তাল থাকে না ঠিক!
রাত্রি নিঝুম, শুনশান যেই, অম্নি চতুর্দিক
হাঁ করে ভাই গিলতে আসে বীভৎস রূপ তার
গিন্নীও নেই দাঁড়ায় রুখে। বলবে- খবরদার!
আর এক পা-ও এগিয়েছো কি মারব মাথায় বাড়ি
রাতদুপুরে বজ্জাতি সব? মিচকে বদের ধাড়ি!

নিস্তব্ধতা চুরমার হয় 'খোকন' 'খোকন' ডাকে!
ওহো! সে ব্যাটাও তো বিয়ের পরে শহরে গিয়ে থাকে।
একদিন তাই মরীয়া হয়েই পড়ল বুড়ো নেমে
চৌকি ছেড়ে টর্চটা হাতে তিন-পা হেঁটেই থেমে
বলল জোরে সাহস করে ফুলিয়ে গলার শির
'বেরোও বলছি এ ঘর ছেড়ে শিগগির শিগগির!'

ধমকের সেই দাপট শুনেই নেংটি ইঁদুর, দুটি
বুটের থেকে লাফিয়ে উঠে লাগায় ছুটোছুটি!
খোকনের সেই স্কুলের জুতো হাতের ওপর নিয়ে
হাসির চোটে বুড়োর তো যায় দমটাই আটকিয়ে!

ভূত ভেগেছে। শান্তি। এবার কে আর রাত্রে জাগে?
এখন খালি ঘুমোতে এলে বড্ড একলা লাগে।
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • মেহজাবিন
    মেহজাবিন ভিন্ন মাত্রার কবিতা। অন্যরকম মানে খুঁজে পেলাম।
    প্রত্যুত্তর . ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
    • বিনায়ক চক্রবর্তী এটা তো সে-অর্থে ঠিক কবিতা নয়। ছড়া-বিশেষ। তাই সাধারনভাবে আর পাঁচটা ছড়ার মতোই একমাত্রিক। আমার বক্তব্যও ছিল খুব সাধারন। এক অশীতিপর বৃদ্ধ। যাঁকে শেষ বয়সে দেখবার মতো ধারে-কাছে কেউ নেই। তিনি রাত্রে ঘুমোতে পারছেন না। কারন রাত্তির হলেই ভূতেরা ঘরের মধ্যে হাঁটা-চলা লাগিয়ে দিচ্ছে। শেষমেশ একদিন তিনি এ-রহস্য ভেদ করলেন বটে। কিন্তু দেখা গেল এখনও শান্তির ঘুম অধরা। কারন নতুন করে নিঃসঙ্গতার ভয়ে জড়িয়ে পড়েছেন তিনি, যেটা হয়ত পূর্বের ভূতের ভয়ের প্রলেপ দিয়ে প্রশমিত ছিল। এইটুকুই। এর বাইরে আপনি অন্য কোন অর্থ উপলব্ধি করে থাকলে তা পাঠক হিসেবে আপনারই গভীরতা। তার জন্য আমি কৃতিত্ব দাবী করতে পারি না। :)
      প্রত্যুত্তর . ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • মোঃ মোখলেছুর  রহমান
    মোঃ মোখলেছুর রহমান ছন্দ নিয়ে দ্বন্ধ যতই হোক মাত্রা ঠিক রাখাও কবিত্বের একটা অংশ।সবখেন এর অর্থ বুঝা গেলনা।
    প্রত্যুত্তর . ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • খন্দকার আনিসুর রহমান জ্যোতি
    খন্দকার আনিসুর রহমান জ্যোতি খুব ভালো এবং মানসম্মত লেখা.....ছড়াকে এত সহজ সোজা ভাবা ঠিকনা।....শুভ কামনা..........
    প্রত্যুত্তর . ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭