বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১২ মার্চ ১৯৯৭
গল্প/কবিতা: ১৮টি

ছলনা যখন নারীর মনে

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী নভেম্বর ২০১৭

এখনও আমি সোহানাকে খুজি

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী নভেম্বর ২০১৭

বিষণ্ন আঁধারের অতিথি

আঁধার অক্টোবর ২০১৭

কবিতা - কষ্ট (ডিসেম্বর ২০১৭)

স্মৃতির জলে ভেজা হারানো শৈশব

মোঃ নুরেআলম সিদ্দিকী
comment ১৪  favorite ০  import_contacts ১৪৪
রাতটা বড্ড ক্লান্ত, নিস্তব্ধ চারদিক
অথচ আমি ভাবি আমার হারিয়ে যাওয়া সে দিন গুলি;
দেয়ালে টাঙানো মুঠোমুঠো কোলাহল,
বাড়ি ভরা শিল্পের কুঁড়ো,
সাবালিকার দলবেধে কাক- শালিকের খেলা,
বেনি করা সুতোর মত আটকে থাকতো কত প্রিয়জন,
ঠোটের কোণে লুকানো ছিলো শত অচেনা ইন্দ্রজাল,
আল্পনার হাতে খুব যত্নে গড়া ছিল কত প্রেম-ভালোবাসা।
ঘোলাটে চোখের সরু চাহনিতে প্রিয়ার রূপের বাঁধন
বেনুনি করা আঁচলে খুব যতনে গুঁজে দেওয়া ফুল,
কানামাছি, গোল্লাছুট, হা-ডু-ডু তে মেতে উঠা কত আনন্দ...

কতকাল ধরে এ সব হারিয়ে ফেলেছি;
অথচ আজ পুরনো কয়েদখানা ভেঙে সৃষ্টি হয় বিশাল জলরাশি,
স্মৃতিতে বার বার জমে উঠে ভাঙা নীল কাঁচ,
অপেক্ষার বাঁধ ফেরিয়ে উঠে আসে দুরন্ত শৈশবের ক্ষণেরা!
যোগ হয় কিছু রাংতা-মোড়ানো কষ্টের গ্যালাক্সি;
নীল জ্যোৎ¯স্নায় ছলকে উঠা আর্তনাদ,
প্রণয়ের বুকে গাঁথা বিরহীর মালা...

এক সময় এ সব বৈঠক করা শুরু করে, আর চতুর্দিক থেকে গ্রাস করে ফেলে এ আমাকে,
অতঃপর আমি ঢুকে পড়ি এক মহাজাগতিক ইট কাঠের জঙলে,
যেখানে থমকে দাঁড়ায় স্মৃতির পাতা,
ধূলির ধূসর কায়ায় ¯স্রোতের নদীতে ভাসায় ফেনার মতোন!
প্রতিনিয়ত পারমানবিক হামলা চলে বুকের ভিতর,
সিডরের মত আকাশ পাতাল তোলপাড়!
অবশেষে তারারা পাড়ি দেয় ঘুম সাগরে,
নির্ঘুম জাগার ডানা মেলা পাখির সুর নিঃশেষ হয়ে যায় কোন এক প্রান্তে,
অথচ পাথরনীরবতায় ঝাপসে থাকা ধূম্র কুয়াশার অচেনা ক্ষোভ আমায় হাত বাড়িয়ে ডাকে
অবাধ্য দিনের ফিনিক হারানো সব উত্তাপ আবার জাগিয়ে তোলে,
অতঃপর নোনা বালির তীর ধরে সাগরের ঢেউয়ে চেপে নীলজল দিগন্ত ছুঁয়ে ভাসিয়ে দেয় পুরো শরীর...!!
আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন